রাজস্থানের নাটক অব্যাহত। রাজস্থান হাইকোর্টের পর সুপ্রিম কোর্টেও স্বস্তি পেয়েছেন শচীন পাইলট শিবির। কিন্তু কংগ্রেস নেতা তথা রাজস্থান মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলটের আর সিপি যোশীর যৌথ উদ্যেগে সেই স্বস্তি নিমেষেই উধাও হয়ে যাচ্ছে। শুক্রবার সকাল সাড়ে দশটা নাগাদ শচীন পাইলট ও তাঁর ১৮ অনুগামী বনাম স্পিকার মামলা রায় ঘোষণা করার কথা রাজস্থান আদালতের। এর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যে বেলাই রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট বলেছেন খুব তাড়াতাড়ি রাজস্থান বিধানসভায় অধিবেশন ডাকা হবে। আর সেইসঙ্গে সংখ্যা গরিষ্ঠতা নিয়েও আত্মবিশ্বাস প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেছেন সমস্ত কংগ্রেস বিধায়ক ঐক্যবদ্ধ রয়েছে। সংখ্যা গরিষ্ঠতার প্রমাণ দিতে কোনও সমস্যাই হবে না। 

নাম না করে এদিনও অশোক গেহলট টেনে আনেন শচীন পাইলট প্রসঙ্গে। তিনি  বলেন যাঁরা আদালতে গেছেন তাঁরা পথভ্রষ্ট হয়েছেন। তাঁদের একমাত্র বক্তব্য বিধায়ক হিসেবে তাঁদের কাছে অযোগ্যতার নোটিশ পাঠান ন্যায়সংগত কিনা। তিনি আরও বলেন, অ্যান্টি-ডিফেমেশন আইনের সঙ্গে এর কোনও যোগাসূত্র নেই। অন্যদিকে কংগ্রেস নেতাও ফ্লোর টেস্টের কথা বলেছেন। 

৭৫ বছর পর ৫ হাজার ইহুদি হত্যার সাজা পেলেন বৃদ্ধ, নাৎসি কনসেন্ট্রেশন ক্যাম্পের শেষ বিচার ...

সুপ্রিম কোর্টেও স্বস্তি শচীন পাইলট শিবিরের, গণতন্ত্রে বিরুদ্ধ কণ্ঠস্বর রোধ করা যায় না বলল আদালত ..

যদিও বিধায়ক হিসেবে অযোগ্যতার নোটিশ নিয়ে এখনও পর্যন্ত রীতিমত উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। ঘনিষ্ট মহলে তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন যে বিধায়ক হিসেবে অযোগ্য ঘোষণা করতে এক মুহূর্তে শেষ হয়ে যাবে তাঁর রাজনৈতিক জীবন। পাইলট অনুগামীরা জানিয়েছেন এখনও পর্যন্ত কংগ্রেসের সঙ্গেই রয়েছেন তাঁরা। বিজেপিতে যোগ দেওয়ার সম্ভাবনাও খারিজ করেছে দিয়েছে বলেও জানাচ্ছে একটি সূত্র। 


২০০ আসনের রাজস্থান বিধানসভায় শচীন পাইলট সহ ১৯ জনকে বাদ দিয়েও কংগ্রেসের হাতে রয়েছে ১০০ -র বেশি বিধায়ক। রাজস্থান বিধানসভায় ম্যাজিক ফিগার হল ১০১। তাই সংখ্যা গরিষ্ঠতা প্রমাণে কিছুটা হলেও গেহলট শিবির নিশ্চিত রয়েছে বলেই সূত্রের খবর। কারণ বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরেই গেহলট অনুগামী বিধায়কদের রেখেছেন রাজস্থানের বিলাসবহুল হোটেলে।