ছত্তিশগড়ের শনিবার থেকে মাওবাদী ও নিরাপত্তা রক্ষাদের মধ্যে সংঘর্ষে নিহত হয়েছে ২২ জওয়ান। আহতের সংখ্যা ৩১। মাওবাদী ও নিরাপত্তাবাহিনীর সংঘর্ষের পর থেকে নিখোঁজ সিআরপিএফ-এর কনস্টেবল রাকেশ্বর সিংহ মানহাস। স্থানীয় প্রশাসনের অনুমান ৩৫ বছরের রাকেশ্বরকে বন্দি বানিয়ে রেখেছে মাওবাদীরা। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহর কাছে নিখোঁজ জওয়ানকে উদ্ধারের আবেদন জানিয়েছেন তাঁর স্ত্রী। 

নিরাপত্তা বাহিনী সূত্রের খবর, তাঁরা জানতে পেরেছেন সিআরপিএফ জওয়ানকে মাওবাদীরা অপরহণ করেছেন। কিন্তু এই বিষয় নিয়ে এখনও পর্যন্ত কোনও বার্তা আসেনি মাওবাদীদের পক্ষ থেকে। জম্মুর বাসিন্দা রাকেশ্বরকে তাই কোথায় রাখা হয়েছে তাও স্পষ্ট নয় নিরাপত্তা রক্ষীদের কাছে। সূত্রের খবর বিষয়টি নিয়ে এখনও পর্যন্ত কোনও আলোচনাই শুরু হয়নি। তবে মাওবাদীরা যে সিআরপিএফ জওয়ানকে অপরহরণ করেছে সে সম্পর্কে তাঁরা প্রায় নিশ্চিত বলেও জানিয়েছেন। 

স্বামী বিজেপিতে, তৃণমূলে নাম লিখিয়ে আরামবাগ থেকে টিকিট পাওয়া সুজাতার সম্পত্তির পরিমান জেনে নিন ...

হুগলি থেকে বাংলার সঙ্গে দিল্লি দখলের বার্তা, নির্বাচনী এজেন্ট নিয়ে স্পষ্ট নির্দেশ মমতার ...

স্থানীয় এক সাংবাদিকও জানিয়েছেন, অচেনা নম্বর থেকে তাঁর কাছে একটি ফোন এসেছিল। সেই ফোনকলের ভিত্তিতেই তিনি দাবি করেছেন যে রাকেশ্বরকে বন্দি বানিয়েছে মাওবাদীরা। সাংবাদিকের আরও দাবি মাওবাদী নেতা তথা পিপিলস লিবারেশনের গেরিলা আর্মির এক নম্বর ব্যাটালিয়নের প্রধান হিদমা তাঁকে ফোন করেছিল। অপহৃত জওয়ান নিরাপদে রয়েছে বলেও জানান হয়েছে। সোমবার এই ফোনকলটি পেয়েছেন বলেো জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট সাংবাদিক।  এদিকে পুলিশও অপহৃত জওয়ান সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহের চেষ্টা করছে বলেও সূত্রের খবর।

সিআরপিএএর একটি দল জম্মুতে রাকেশ্বর সিং মানসেরের পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন। নিখোঁজ জওয়ানের খোঁজে তল্লাশি চালান হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তাঁরা। রাকেশ্বরকে খুঁজে বার করার জন্য সবরকম চেষ্টা চালিয়ে যাওয়া হবে বলেও সিআরপিএফ জওয়ানের পরিবারকে আশ্বার দিয়েছেন। অপরহত জওয়ানের স্ত্রী মিনু মানহাস বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহর কাছে আবেদন জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন তাঁরা যেভাবে পাকিস্তানে বন্দি অভিনন্দন বর্তমানকে মুক্ত করে এনেছিলেন সেভাবেই যেন তাঁর স্বামীকে মাওবাদীদের ডেরা থেকে উদ্ধার করে আনেন। অন্যদিনে মিনু জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট সাংবাদিক মিনুকেও ফোন করেছিলেন। তিনি তাঁকে স্বামীর মুক্তির আবেদন জানিয়ে মাওবাদীদের কাছে  একটি ভিডিও বার্তা পাঠানোর কথাও বলেছেন।