আবারও রক্তাক্ত হল ভূস্বর্গ। আবারও মৃত্যু হল এক বিজেপি কর্মীর। এবারও একই ভাবে বাড়ির খুব কাছেই তাঁকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এবার জঙ্গিদের নিশানায় ছিলেন বিজেপির কাউন্সিলর ভূপিন্দর সিং। মধ্য কাশ্মীরের বেলগামে ডালওয়াশ গ্রামে বাড়ির খুব তাঁকে গুলি করে হত্যা করা হয় বলে জম্মু কাশ্মীর পুলিশের তরফে জানান হয়েছে। স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানান হয়েছে, সন্ধ্যে ৭টা ৪৫ মিনিটে ভূপিন্দর সিংকে লক্ষ্য করে গুলি চালান হয়। ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়। তিনি খাগ ব্লক ডেভলপমেন্ট কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ছিলেন। 

প্রাথমিক তদন্তের পর জানাগেছে, ভূপিন্দর সিং জেলা পুলিশ লাইন থেকে দুজন নিরাপত্তারক্ষী পেতেন। বুধবার তিনি শ্রীনগরে তাঁর বাড়িতে যাচ্ছিলেন। কিন্তু আচমকাই তিনি তাঁর যাত্রাপথ পরিবর্তন করেন। পুলিশ সূত্রে জানান হয়েছে, পুলিশকে না জানিয়েই নিজের যাত্রাপথ পরিবর্তন করেছিলেন তিনি।  আর সেই সময়ই বাড়ির খুব কাছেই তাঁরে লক্ষ্য করে গুলি চালান হয়। জঙ্গিদের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে নিরাপত্তা রক্ষীরা। 


ভূস্বর্গে পরপর জঙ্গিদের হামলার শিকার হচ্ছেন বিজেপি নেতাকর্মীরা। অগাস্টেই গুলিবিদ্ধ হন কুলগামের বিজেপির গ্রাম প্রধান সাজাদ আহমেদ খান। জুলাইয়ে বন্দিপোরায় খুন করা হয় বিজেপি নেতা শেখ ওয়াসিম বারিকে। ওয়াসিম বারির সঙ্গে মৃত্যু হয়েছিল তাঁর বাবা আর ভাইয়েরও। পরপর তিন বিজেপি নেতাকেই বাড়ির খুব কাছে খুন করে ভয়ের পরিবেশ তৈরি করতে চাইছে জঙ্গিরা। তেমনই দাবি করছে স্থানীয় প্রশাসন। 

শুধু বিজেপি নেতা কর্মীদেরই নিশানা করতে জঙ্গিরা এমনও নয়, তাদের নিশানায় রয়েছে নিরাপত্তা রক্ষীরা। কারণ চলতি মাসেই পুলওয়ামার মত হামলার ছক কষেছিল সন্ত্রাসবাদী সংগঠন। কারণ জাতীয় সড়কের ধার থেকেই উদ্ধার হয়েছিল প্রচুর বিষ্ফোরক। মঙ্গলবারই ড্রোনের মাধ্যমে স্থানীয় জঙ্গিদের জন্য প্রচুর পরিমানে আগ্নেয়াস্ত্র ফেলা হয়েছে বলে জানিয়েছে প্রশাসন। আর এই ঘটনায় পাকিস্তানের প্রত্যক্ষ মদত রয়েছে বলেও দাবি করা হয়েছে। কারণ ভারতীয় সীমান্ত পার হয়েই পাকিস্তান ড্রোনে করে অস্ত্র ফেলেছে বলেই জানিয়েছে জম্মু ও কাশ্মীর পুলিশ।