গত ৬ সপ্তাহ ধরেই উত্তপ্ত পরিস্থিতি লাদাখের পূর্ব সীমান্তে। এই পরিস্থিতিতেও লক্ষ্যে অবিচল রয়েছে ভারত। যেনতেন প্রকারে রাস্তা তৈরির কাজ সম্পর্ণ করতে মরিয়া ভারত। সূত্রের খবর যেকোনও পরিস্থিতিতে ফরওয়ার্ড এরিয়া সাব সেক্টর নর্থ-এর সঙ্গে যেতা যোগাযোগ না বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় তার জন্যই এই পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে বর্ডার রোড অর্গানাইজেশন। একটি রাস্তা দারবুক শাইয়ক দৌতল বেগ ওল্ডি, যোগাযোগ স্থাপন করবে উত্তের শেন চেকপোস্ট পর্যন্ত। অন্য রাস্তাটি সাসোমা থেকে সাসির বা পর্যন্ত বিস্তৃত। এটি দৌলত বেগ ওল্ডির বিকল্প রাস্তা হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে। এই দুটি রাস্তা নির্মানের দায়িত্বই বর্ডার রোড অর্গানাইজেশনের। আর রাস্তা নির্মানের কাজে কোনও রকম ঢিলে দিতে রাজি নয় সংশ্লিষ্ট সংস্থা।

কেন্দ্রীয় সরকারের এক আধিকারিকের কথায় সোমবারই একটি বিশেষ ট্রেনে করে ঝাড়খণ্ড থেকে শ্রমিকদের নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তাঁরা জম্মু কাশ্মীর পৌঁছে গেছে।  যাদের লে  ও লাদাখের বিভিন্ন জায়গায় পাঠান হবে। করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে দেশ জুড়ে চলা লকডাউনের কারণে রাস্তা তৈরির কাজ বিঘ্নিত হয়েছে বলে সূত্রের খবর। চলতি মাসে ঝাড়খণ্ড থেকে আরও শ্রমিক নিয়ে যাওয়া হবে।  এই প্রকল্পের জন্য প্রায় ১১, ৮০০ শ্রমিক নিয়োগের চিন্তাভাবনা করছে বিআরও। 

পাকিস্তানে ২ ভারতীয় কর্মীর ওপর 'অকথ্য অত্যাচার', ১২ ঘণ্টায় খেতে দেওয়া হয়েছিল নোংরা জল ...

মোদীর আত্মনির্ভর ভারত ভারত অভিযানেও 'চিনা থাবা', লাদাখের কারণে টেন্ডার বাতিলের দাবি ..

উত্তপ্ত লাদাখ সীমান্তে ভারত-চিন সেনাদের মধ্যে 'হাতাহাতি', নিহত ৩ ভারতীয় জওয়ান ..

তবে অতি উচ্চতায় এই রাস্তা নির্মানের কাজ খুব একটা সহজ হবে না। কারণ ২২৫ কিলোমাটিরার দারবুক -শাইয়ক-দৌলত বেগ ওল্ডি রাস্তাটিতে আটটি ব্রিজ তৈরি করতে হবে। অতি উচ্চতায় কাজ করাও সমস্যার। প্রয়োজনেস একটি সুড়ঙ্গও তৈরি করতে হতে পারে বলে সূত্রের খবর।  তবে এই রাস্তাটির নির্মাণকাজ সম্পন্ন হলে ভারতীয় বাহিনীর যাতায়াতের সময় অনেকটাই কমে যাবে। যদি ভারত চিন সীমান্তে উত্তেজনা আরও বাড়ে তাহলে রসদসহ প্রয়োজনীয় জিনিস পৌঁছে  দেওয়া সহজ হয়ে যাবে অনেকটা। তাই চলতে বছরেই রাস্তা নির্মানের কাজ শেষ করতে চাইছে বর্ডার রোড অর্গানাইজেশন।