সোমবার সকালে গুজরাত উপকূলে একটি ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টি হওয়ার আশঙ্কা তৈরি তৈরি হয়েছে। ভারতের আবহাওয়া দফতরের তরফে জানানো হয়েছে যে, ঘূর্ণিঝড়ের পশ্চিমমুখী পথটি ওমানের দিকে যাবে, এবং এর জেরে গুজরাতে কেবল হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। 

মৌসম ভবনের তরফে আরও জানানো হয়েছে, তাদের কাছে যে উপগ্রহ চিত্র ধরা পড়েছে তাতে দেখা গিয়েছে যে, গুজরাতের ভেরাভাল থেকে ১৫০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে সমুদ্রের ওপর একটি নিম্নচাপ অক্ষরেখা বিরাজ করছে। আর তা থেকেই অনুমান করা হয়েছিল যে, এই নিম্নচাপই ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে এবং আগামী তিন দিনের মধ্যে ওমানের দিকে অগ্রসর হতে পারে।

আরও পড়ুন- ফের ঊর্ধ্বমুখী পেট্রলের দাম, সোমবার নয়া দিল্লিতে এক ধাক্কায় বেড়ে হল ৭৩.৯১ টাকা

আরও পড়ুন- 'হাউডি মোদী' অনুষ্ঠানে কবিতা পাঠে প্রধানমন্ত্রী, জিতে নিলেন কয়েক হাজার হৃদয়

এরপর সোমবার সকালে দেখা গিয়েছে, নিম্নচাপটি ধীরে ধীরে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে। তবে ইতিমধ্যেই তা গুজরাত থেকে অনেকটাই দূরে সরে গিয়েছে। শেষ পাওয়া খবর অনুসারে ঘূর্ণিঝড়ের অবস্থান রয়েছে ভেরাভালের ৫০০ কিলোমিটার পশ্চিম-দক্ষিণ-পশ্চিমে, পাকিস্তানের করাচির ৪৩০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণ-পশ্চিমে, এবং ওমানের মাসিরাহ-এর ৭৩০ কিলোমিটার পূর্ব-দক্ষিণ-পূর্বে। প্রায় ১৭ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা বেগে ঘূর্ণিঝড়টি এগিয়ে চলেছে বলে জানা গিয়েছে। এরপর আগামী বুধবার অর্থাৎ ২৫ সেপ্টেম্বর তারিখে ওমানে একটি ল্যান্ডফল হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। প্রায় ২৪ ঘণ্টা ধরে তীব্র আকার ধারণ করার পর ঘূর্ণিঝড় হিক্কা তার শক্তি হারাবে এবং ধীরে ধীরে বিলুপ্ত হয়ে যাবে। 

আরও পড়ুন- হিউস্টনে প্রধানমন্ত্রী, এক ঝাঁক অনাবাসী ভারতীয় উষ্ণ অভ্যর্থনা জানালেন মোদীকে

আরও পড়ুন- দেউলিয়া ১৭৮ বছরের পুরনো ট্রাভেল এজেন্সি থমাস কুক, চাকরিহারা ২১,০০ কর্মচারী, বিশ্বজুড়ে আটকে ৬ লক্ষ পর্যটক

সেইসঙ্গে আরও মনে করা হচ্ছে, বুধবার পর্যন্ত আরব সাগরে ৭০-৮০ কিলমিটার বেগে বাতাস বইতে পারে। মৌসম ভবনের তরফে আরও বলা হয়েছে যে, আগামী ২৪ ঘণ্টায় গুজরাত উপকূলে ৪০ থেকে ৫০ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সৌরাষ্ট্র এবং কচ্ছ উরপকূলে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাতেরও সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস।