ফের দুর্ঘটনা দেশে। এবার ভয়াবহ আগুন লাগল তেলেঙ্গানার একটি জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রে। আগুন লাগার কারণে ওই জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রের ভিতরে কমপক্ষে ৯ জন আটকে পড়েছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ওই বিদ্যুৎ কেন্দ্রে আগুন লাগে বলে জানা যাচ্ছে। শুক্রবার সকালেও বিধ্বংসী আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা যায়নি। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে চেষ্টা চলিয়ে যাচ্ছে দমকল।

আরও পড়ুন: করোনা ভ্যাকসিন 'স্পুটনিক ভি'র উৎপাদনে ভারতের সহযোগিতা চাইছে রাশিয়া, দিল্লির কাছে এল প্রস্তাব

বৃহস্পতিবার গভীর রাতে আগুন লাগে অন্ধ্রপ্রদেশ সীমান্ত লাগোয়া তেলেঙ্গানার শ্রীসাইলাম জলবিদ্যুত্‍‌ কেন্দ্রে। যুদ্ধকালীন তৎপরতায় ইতিমধ্যে  ১০ জন কর্মীকে উদ্ধার করেছেন দমকলকর্মীরা। এখনও ভেতরে ৯ জনের আটকে থাকার আশঙ্কা করা হচ্ছে। তাঁদের উদ্ধারের চেষ্টা চালাচ্ছে দমকলের বেশ কয়েকটি ইঞ্জিন। কুর্নুলের আত্মকুর দমকল বিভাগের আধিকারিকরা যুদ্ধকালীন তত্‍‌পরতায় আগুন নেভানোর কাজ চালাচ্ছেন। কাজ করছে বিপর্যয় মোকাবিলা দফতরও।

 

 

জানা  যাচ্ছে, রাত সাড়ে দশটা নাগাদ ওই আগুন লাগলেও প্রথমে কেউ তা টের পাননি, পরে আগুনে ছড়িয়ে পড়লে আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েন সকলে।  সেই  সময় সেখানে অন্তত ২০ জন কর্মী উপস্থিত ছিলেন বলে খবর।প্রাথমিক ভাবে জানা যাচ্ছে, শ্রীসাইলামের বাঁধের  তীরে অবস্থিত ওই  হাইড্রোইলেকট্রিক পাওয়ার স্টেশনে  শর্ট সার্কিটের কারণেই এই বিধ্বংসী অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে।

আরও পড়ুন: লাদাখ নিয়ে চাপা উত্তেজনার মাঝেই চিন সফরে পাক বিদেশমন্ত্রী, সমঝোতা চাইছে বেজিং, দাবি দিল্লির

তেলেঙ্গানার মন্ত্রী জি জগদীশ্বর রেড্ডি জানান, “বৃহস্পতিবার রাতে সাড়ে দশটা নাগাদ তেলেঙ্গানার জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রটির এক নম্বর ইউনিটে আগুন লাগে। সঙ্গে সঙ্গে ওই কেন্দ্রের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়েছে। উদ্ধারকার্য শুরু হয়েছে। যাঁরা ভিতরে আটকে রয়েছেন, তাঁদের উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।” তিনি আরও জানিয়েছেন, আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সিঙ্গারেনি কয়লা খনির বিশেষজ্ঞদের থেকে সাহায্য নেওয়া হচ্ছে। 

এনডিআরএফের একটি  দল বর্তমানে ওই জলবিদ্যুৎকেন্দ্রের ভিতরে আটকে পড়া মানুষজনেদের সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে। উদ্ধারকার্যে তাঁদের সাহায্য করছেন কুরনুলের আত্মকুর দমকল কেন্দ্রের কর্মীরাও।