গত বছর ৫ আগস্ট কেন্দ্র কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের পর উপত্যকার লেফটেন্যান্ট গভর্নর হিসাবে দায়িত্ব নিয়েছিলেন গিরিশ চন্দ্র মুর্মু। গুজরাত ক্যাডারের এই আমলার উপরেই সদ্য কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হওয়া কাশ্মীরের শাসন ভার দিয়ে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কিন্তু গত বুধবার কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের বর্ষপূর্ততেই জিসি মুর্মুর পদত্যাদ করা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে নানা প্রশ্ন উঁকি ঝুঁকি দিতে থাকে। অবশেষে সেই সব জল্পনার অবসান হল। মোদী ঘনিষ্ঠ গুজরাত ক্যাডারের প্রাক্তন এই আইপিএস অফিসারকেই এবার দেশের নয়া কম্পট্রোলার অ্যান্ড অডিটর জানারেল পদে নিয়োগ করল কেন্দ্রীয় সরকার।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যখন গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন তখন থেকে তাঁর সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে ১৯৮৫ সালের ব্যাচের গুজরাটা ক্যাডারের আইএএস অফিসার গিরিশ চন্দ্র মুর্মুর। পরে মোদী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পরে কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রকের যুগ্ম-সচিব হিসেবেও কাজ করেন তিনি। গত বছরের ৩০ নভেম্বর বর্ষীয়ান এই আমলার অবসর নেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই অক্টোবরে তাঁকে জম্মু ও কাশ্মীরের লেফটেন্যান্ট গভর্নর পদে বসায় মোদী সরকার। কেন্দ্র শাসিত অঞ্চল হিসাবে জম্মু-কাশ্মীরকে ঘোষণা করার পর তার প্রথম লেফটেন্যান্ট গভর্নর হিসেবে ২০১৯ সালের ৩১ অক্টোবর দায়িত্বভার গ্রহণ করেন জিসি মুর্মু। তবে কাশ্মীরের লেফটেন্যান্ট গভর্নর হওয়ার পর  বিভিন্ন ইস্যুতে মাঝেমধ্যে তাঁর সঙ্গে কেন্দ্রের মতপার্থক্য প্রকাশ্যে আসছিল। 

আরও পড়ুন: ৩৭০ ধারা বিলোপের বর্ষপূর্তিতেই ইস্তফা কাশ্মীরের লেফটেন্যান্ট গভর্নরের, দায়িত্বে এলেন প্রাক্তন মন্ত্রী

 ২০১৮ সাল থেকে জম্মু-কাশ্মীরে ভোট থমকে আছে। রাজ্যের মর্যাদা হারানোর পরে সেখানে প্রথম বিধানসভা নির্বাচন নিয়ে প্রাক্তন এই আইএএস অফিসার যে পথ নিয়েছিলেন তা কেন্দ্রের সঙ্গে মিলছিল না। আসন পূণর্বিন্য়াশ না হওয়া পর্যন্ত কাশ্মীরের বিধানসভা ভোট স্থগিত রাখার পক্ষে ছিলেন মুর্মু। তাছাড়া কাশ্মীরে ৪জি মোবাইল ইন্টারনেট পরিষেবা চালু নিয়েও গিরিশ চন্দ্রের নেতৃত্বাধীন প্রশাসনের সঙ্গে নয়াদিল্লির মত বিরোধ দেখা দিয়েছিল। তাই ৩৭০ ধারা বাতিলের বর্ষপূর্তির দিন জম্মু-কাশ্মীরের প্রথম  লেফটেন্যান্ট গভর্নর ইস্তফা নিয়ে গুঞ্জন শুরু হয় বিভিন্ন মহলে। তবে মুর্মুর ইস্ফতার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই তাঁকে দেশের নতুন অডিটর জেনারেল পদে নিয়োগ করে ভারত সরকার। তিনি রাজীব মেহর্ষির স্থলাভিষিক্ত হলেন।

তবে  দেশের পরবর্তী সর্বোচ্চ অডিটর পদে বসার দৌড়ে তিনি আছেন বলে আগেই শোনা যাচ্ছিল। জানা গেছে, বর্তমানে দেশের কন্ট্রোলার অ্যান্ড অডিটর জেনারেল পদে থাকা রাজীব মহর্ষি ৬৫ বছর হয়ে যাওয়ায় দায়িত্ব ছাড়ার সময় হয়ে গিয়েছে। এদিকে যেহেতু কন্ট্রোলার অ্যান্ড অডিটর জেনারেল পদটি একটি সাংবিধানিক পদ তাই এটিকে কখনোই ফাঁকা রাখা যায় না। সেই কারণেই তড়িঘড়ি রাজীব মহর্ষির স্থলাভিষিক্ত করা হল জিসি মুর্মুকে।

আরও পড়ুন: যোগী রাজ্য তাঁকে চেনে 'বিকাশ পুরুষ' হিসেবে, কাশ্মীর নিয়ে বিএইচইউ-র প্রাক্তনীর উপরেই ভরসা রাখলেন মোদী

গুজরাত ক্যাডারের আইএএস হলেও আদতে ওডিশার ময়ুরভঞ্জ জেলার বাসিন্দা গিরিশচন্দ্র মুর্মু। ভূবনেশ্বরের উৎকল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে এমএ করেন তিনি। বার্মিংহাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিজনেস অ্যাডমিনিস্টেশনে ডিগ্রিও আছে তাঁর ঝুলিতে। এদিকে প্রফেসর প্রদীর কুমার যোশীকে এদিন  ইউপিএসসির চেয়ারম্যান নিযুক্ত করেছে ভারত সরকার।