২৮ অগাস্ট সকাল থেকে জম্মু-কাশ্মীরের যেসব এলাকায় বিধি-নিষেধ শিথিল করা হয়েছে, সেইসব এলাকার হাই স্কুলগুলি খুলে গেল। এর আগেই প্রাথমিক ও মধ্যশিক্ষার স্কুলগুলি খুলেছিল। এবার উচ্চশিক্ষার স্কুলও খুলল। কিন্তু দেখা মিলল না ছাত্র-ছাত্রীর। শিক্ষক ও অশিক্ষক কর্মীদেরও উপস্থিতি ছিল হাতে গোনা। বিধি নিষেধ অনেকটাই শিথিল হলেও এখনও বহু মানুষ স্বচ্ছন্দে চলাচল করতে ভয় পাচ্ছেন। কোথাও একটা অবিশ্বাসের বাতাবরণ রয়েছে।

মঙ্গলবারই জম্মু-কাশ্মীরের উচ্চশিক্ষার স্কুলগুলি খোলের কথা ঘোষণা করেছিলেন রাজ্য়ের তথ্য ও জনসংযোগ আধিকারিক সেহরিশ আসগর। উপত্যকার ৮১টি থানা এলাকায় ইতিমধ্যে বিধি-নিষেধ শিথিল করা হয়েছে। এই এলাকাগুলির হাইস্কুললগুলিই খোলার সিদ্ধান্ত নেয় শিক্ষা দপ্তর।

আরো পড়ুন - জম্মু ও কাশ্মীরের রাজৌরি জেলায় খুলল স্কুল, কিন্তু গড়হাজির পড়ুয়ারা

আরও পড়ুন - ৩৭০ ধারা হয়েছে বাতিল, পাথর ছোড়ার ঘটনা কি কমেছে, কী বলছে সরকারি পরিসংখ্যান

আরও পড়ুন - শান্ত উপত্যকায় চালু হচ্ছে ল্যান্ডলাইন পরিষেবা, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার আশ্বাস দিলেন রাজ্যপাল

আরও পড়ুন - রাহুলের মন্তব্যকে হাতিয়ার পাকিস্তানের, চাপে পড়ে মোদী সরকারের পাশে কংগ্রেস নেতা

এর আগেই প্রাথমিক ও মধ্যশিক্ষা স্কুলগুলি খুলেছিল। সেখানেও প্রথম দিকে ছাত্র-ছাত্রীর দেখা মিলছিল না। আসছিলেন না শিক্ষক-শিক্ষিকারাও। কিন্তু গত একসপ্তাহে সেই ছবিটার অভাবনীয় উন্নতি হয়েছে বলে দাবি করেছেন কাশ্মীরের শিক্ষা দপ্তরের ডিরেক্টর ইউনুস মালিক। তিনি জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত উপত্যকায় ৩,০৩৭টি প্রাথমিক স্কুল ও ৭৭৪টি মধ্যশিক্ষা স্কুল খুলে গিয়েছে। সেইসব স্কুলে পঠনপাঠন অনেকটাই স্বাভাবিক হয়ে গিয়েছে বলেও দাবি করেছেন তিনি।