চন্দ্রপৃষ্ঠে ল্যান্ডার বিক্রমের সফট ল্যান্ডিং-এর প্রচেষ্টায় ব্যর্থ হয় ভারতের মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র ইসরো। চাঁদ থেকে মাত্র ২.১ কিলোমিটার দূরত্ব থেকেই ইসরোর গ্রাউন্ড স্টেশন থেকে সমস্ত যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছিল ল্যান্ডার বিক্রমের। গত ১৪ দিনের প্রচেষ্টার পরেও যোগাযোগ সম্ভব হয়নি বিক্রমের সঙ্গে। আর সেই আশাও নেই বলেই মনে করা হচ্ছে।

প্রসঙ্গত চলতি মাসের ৭ সেপ্টেম্বর তারিখে চন্দ্রপৃষ্ঠের অবতরণের আগেই ইসরোর সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় ল্যান্ডার বিক্রমের। এরপর ১৪ দিন সময় ছিল বিক্রমের হাতে যার মধ্যে সেটি চাঁদের অদেখা দক্ষিণ মেরু পরিদর্শন করতে পারত। আর সেই ১৪ দিন শেষ হচ্ছে আজ অর্থাৎ ২১ সেপ্টেম্বর। তারপরই চাঁদের ওই অংশ নিমজ্জিত হবে অন্ধকারে। কারণ চাঁদের ওই অংশে সূর্যের আলো আর পড়বে না। আর সেই মোতাবেকই ল্যান্ডার বিক্রমটি এমনভাবে তৈরি করা হয়েছিল, যাতে তার আয়ু ছিল এক চন্দ্রদিবস অর্থাৎ ১৪ দিন।  

প্রসঙ্গত, ল্যান্ডার বিক্রমের সঙ্গে ইসরোর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেলেও আশা ছাড়েননি ইসরোর বিজ্ঞানীরা। ল্যান্ডার বিক্রমের খোঁজ জারি ছিল। অবশেষে বিক্রমের খোঁজ দিয়েছিল চন্দ্রযান-২-এর অরবিটার, যেটি চাঁদের চারপাশে পাক খেয়ে চলেছে। সেই অরবিটারের থার্মাল ইমেজে ধরা পড়েছিল ল্যান্ডার বিক্রমের ছবি। ল্যান্ডার বিক্রমের খোঁজ পাওয়ার পর বিজ্ঞানীদের মনে খানিকটা আশার আলো দেখা গিয়েছিল। এবং ইসরোর তরফে জানানো হয়েছিল তাদের তরফে ল্য়ান্ডার বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপনের সমস্ত রকম চেষ্টা করা হবে। 

আরও পড়ুন- 'উইন্টার ইজ কামিং', ইসরোর সামনে ল্যান্ডার বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগের শেষ সুযোগ

আরও পড়ুন- ৩৭০ ধারা বাতিলের পর ৪০০০ সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার, মুক্তি পেল প্রায় ৩,১০০

আরও পড়ুন-প্রথমে ইমরান, পরে নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে বৈঠকে বসবেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প

এরই মধ্যে একাধিক বিশেষজ্ঞের কথায়, ল্যান্ডার বিক্রমটি আস্ত ছবি পাওয়া গেলেও এর কলকবজা কি আদৌ আস্ত রয়েছে কি না সেই নিয়ে আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। চন্দ্রযান-২-এর অবতরণ সফল হলে আমেরিকা, রাশিয়া এবং চিনের পর চতুর্থ স্থানে নাম লেখাত ভারত। কিন্তু সেই লক্ষ্য সফল হওয়ার আর কোনও সম্ভবনাই দেখতে পাচ্ছেন না বিজ্ঞানীরা। কারণ এক চন্দ্রদিবসের শেষদিন হল আজ। আজকের পর নিজের কার্যক্ষমতা হারাবে বিক্রম, যার ফলে বিক্রমের সঙ্গে আর যোগাযোগ করা কার্যত অসম্ভব একথা বলাই যায়।