দিনে দুপুরে গ্রামের মেঠো পথ রক্তাক্ত হল সমাজবাদী পার্টির নেতা ও তাঁর ছেলের রক্তে। দুই বন্দুকবাজ রীতিমত তাণ্ডব চালাল। এই ঘটনা উত্তর প্রদেশের  সম্বল জেলায়। উত্তর প্রদেশের রাজধানী লখনৌ থেকে মাত্র ৩৭৯ কিলোমিটার আর দেশের রাজধানী দিল্লি থেকে মাত্রা ১৮৭ কিলোমিটার দূরে। আর সেই ঘটনার ভয়ঙ্কর ছবি এক প্রত্যক্ষদর্শী ক্যামেরা বন্দি করেছিলেন। নিমেশের মধ্যে বাবা ও ছেলের খুনের ছবি ছড়িয়ে পড়ে গোটা দেশে। ক্রমেই তা ভাইরাল হয়ে যায়। 


স্থানীয় সূত্র জানা গেছে সমাজবাদী পার্টির নেতা ছোটে লাল দিওয়াকর ও তাঁর ছেলে সুনীল মনরেগা প্রকল্পের একটি রাস্তার কাজ পরিদর্শন করতে শামসই গ্রামে গিয়েছিলেন। ক্ষেত্রের মধ্যে দিয়ে খুব সরু মাটির রাস্তা তৈরির কাজ চলছে। সেই কাজ পরিদর্শনে গিয়ে দুই ব্যক্তির সঙ্গে তর্কাকর্তিতে জড়িয়ে পড়েন ছোটে লাল ও তাঁর ছেলে। প্রকাশ্যে আসা ভিডিওটি দেখা গিয়েছে দুই বন্দুকধারী ব্যক্তির সঙ্গে তাঁরা বিবাদে জড়িয়ে পড়েছেন। একজনের পরনে সাদা জানা। অন্যজন পরে রয়েছেন গোলাপি জানা। গোলাপি জামা পরা ব্য়ক্তি এলাকায় বাহুবলী  হিসেবে পরিচিত। তার নাম সাভিন্দর। 

বেশ কিছুক্ষণ তর্কাতর্কির পর দুই বন্দুকধারী এলাকা ছেড়ে চলে যাওয়ার চেষ্টা করে। তিন্তু তখনই এক ব্যক্তি বলে ওঠেন যদি ক্ষমতা থাকে গুলি চালাও। এরপরই দুই বন্দুকধারী ফিরে এসে ছোটে লাল ও তাঁর ছেলেকে লক্ষ্য করে খুব কাছ থেকে গুলি করে। দুজনেই সঙ্গে সঙ্গে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। মূল ভিডিওটি  ২ মিনিট ৪০ সেকেন্ডের । কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যেই এই ভয়ঙ্কর ভিডিও  ছড়িয়ে পড়ে। ছোটে লালের স্ত্রী ওই গ্রামেরই প্রধান। তাই এই ঘটনা সামনে আসার পরই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে উত্তর প্রদেশের আইন শৃঙ্খলা নিয়ে। 

আরও পড়ুনঃ আবারও উত্তপ্ত ভূস্বর্গ, এবার শ্রীনগরে গুলির লড়াইয়ে নিহত ২ হিজবুল জঙ্গি ...

আরও পড়ুনঃ সজারুর কাঁটায় কি ঘায়েল হল ছোট্ট চিতাবাঘটি, জানতে দেখুন ভাইরাল হওয়া সেই ভিডিও ...

যদিও পুলিশ প্রশাসনের তরফে জানান হয়েছে ভিডিওতে দেখতে পাওয়া এক  ব্যক্তিকে ইতিমধ্যেই চিহ্নিত করা গেছে। সেই ব্যক্তি এলাকায় বাহুবলী হিসেবেই পরিচিত। এই ঘটনায় জড়িত সন্দেহে বেশ কয়েকজনকে ইতিমধ্যেই গ্রেফতার করা হয়েছে।উত্তর প্রদেশের সমাজবাদী পার্টির নেতা ফিরোজ খান জানিয়েছেন এই হত্যার পিছনে স্থানীয় সমাজবিরোধীদের হাত রয়েছে।  


আরও পড়ুনঃ বঙ্গোপসাগরের সবথেকে শক্তিশালী ঝড় আমফান, আটলান্টিক হ্যারিকেনের চতুর্থ পর্বের সমতুল ...