গত ডিসম্বরে চিনের উহান শহরে প্রাদুর্ভাব হয়েছিল করোনা ভাইরাসের। সেই সময় চিনে মারাত্মকভাবে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া নিয়ে আমাদের দেশেও কম আলোচনা হয়নি। কিন্তু কেউই হয়তো ভাবেননি একদিন চিনের করোনা আক্রান্তের মোট সংখ্যাকে ভারত ছাড়িয়ে যাবে। কিন্তু শুক্রবার সেই ঘটনাই ঘটে গেল। চিনে এখনও পর্যন্ত সরকারি ভাবে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৮২ হাজার ৯৪১। এবার সেই সংখ্যাকে ছাড়িয়ে গেল ভারত। শনিবার সকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী ভারতে বর্তমানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৮৫,৯৪০।

হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইন পাঠিয়েছিলেন মোদী, ভেন্টিলেটর দিয়ে এবার ঋণ শোধ করছেন ট্রাম্প

ফের ভয়াবহ দুর্ঘটনা, ট্রাকের সঙ্গে ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল ২৪ জন পরিযায়ীর

পঞ্চায়েত থেকে মিলল অনুমতি, গ্রামের মেলায় সামাজিক দূরত্বের বিধি না মেনে উপচে পড়ল ভিড়

স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা সংক্রমণের শিকার হয়েছেন ৩,৯৭০ জন। মারা গিয়েছেন ১০৩ জন। ফলে দেশে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২,৭৫২ জন। ভারতে করোনাকে জয় করে সুস্থ হয়েছে ৩০,১৫৩ জন। ফলে দেশে সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫৩,০৩৫। 

 

 

দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৮৫ হাজার ছাড়াতেই করোনা আক্রান্ত দেশগুলির ক্রমতালিকায় ১১ নম্বরে উঠে এসেছে ভারত। আর ৮৪ হাজারেরও বেশি আক্রান্ত নিয়ে লাতিন আমেরিকার দেশ পেরু রয়েছে ১২ নম্বরে। ফলে ক্রম তালিকায় ১৩ নম্বরে নেমে গিয়েছে করোনার উৎসস্থল চিন। তবে ভারতের মৃত্যুর হার এখনও চিনের তুলনায় কম। চিনে মৃত্যুর হার ৫.৫ শতাংশ। ভারতে সেখানে ৩.২ শতাংশ, যা উল্লেখযোগ্যভাবেই বেশ ভালো বলে দাবি করছে স্বাস্থ্যমন্ত্রক।

এদিকে বিশ্বে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ইতিমধ্যে ৪৬ হাজারের গণ্ডি পেরিয়ে গিয়েছে। যার মধ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেই সংখ্যা মোট আক্রান্তের প্রায় এক তৃতীয়াংশ। মৃত ও আক্রান্ত দুই দিক থেকেই বিশ্বের এক নম্বর স্থানে রয়েছে আমেরিকা। দ্বিতীয়, তৃতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম ও ষষ্ঠ স্থানে যথাক্রমে রয়েছে স্পেন, রাশিয়া, ব্রিটেন, ইতালি ও ব্রাজিল। প্রতিটি দেশেই আক্রান্তের সংখ্যা ২ লক্ষের বেশি। এদিকে করোনা সংক্রমণে এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে বিশ্বে ৩ লক্ষেরও বেশি মানুষের।