বছর দুয়েক আগে সংযুক্ত আরব আমিরশাহীর দুবাই বিমানবন্দর থেকে এক ব্যক্তিকে আম চুরির করার অভিযোগে ধরা হয়েছিল। জানা যায়, বিমানবন্দরে এক যাত্রীর ব্যাগ থেকে দুটি আম তুলে নিয়েছিলেন এক ভারতীয়। সূত্রের খবর, অভিযুক্ত ব্যক্তি দুবাই বিমান বন্দরেরই কর্মী ছিলেন বলে জানা যায়। 

এদিন সংযুক্ত আরব আমিরশাহীর এক আদালতের তরফে ওই ব্যক্তিকে জরিমানা করা হয় এবং সেইসঙ্গে ওই ভারতীয়কে দেশে ফেরত পাঠানোরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।  দুবাইয়ের একটি সংবাদপত্রে প্রকাশিত খবরের ভিত্তিতে জানা গিয়েছে, ২০১৭ সালের ১১ অগাস্ট ৬ দিরহাম মুল্যের দুটি আম চুরির অভিযোগে দুবাই এয়ারপোর্টে কর্মরত এক ভারতীয়কে ৫০০০ দিরহাম জরিমানার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। সেইসঙ্গে তাকে দেশে ফেরত পাঠানোরও নির্দেশ দেয় আদালত। 

আরও পড়ুন- 'হাউডি মোদী'র পর ফের ভোলবদল, ইমরানের সঙ্গে বৈঠকে ফের কাশ্মীর ইস্যুতে মধ্যস্থতার দাবি ট্রাম্পের

আরও পড়ুন- আল-কায়দাকে জঙ্গি প্রশিক্ষণ দিয়েছে পাক সেনা ও আইএসআই, ইমরান খানের বিস্ফোরক স্বীকারোক্তি

ঘটনার জেরে জিজ্ঞাসাবাদ এবং মামলার তদন্ত চলাকালীন অভিযুক্ত জানিয়েছিল যে সে দুবাই বিমানবন্দরে টার্মিনাল ৩-এ কর্মরত ছিল। তার কাজ ছিল বিমানের সকল যাত্রীদের মালপত্র কন্টেনার থেকে কনভেয়য়ার বোল্টে তুলে দেওয়া। ২০১৭ সালের ১১ অগাস্ট তারিখে একটি ফলের বাক্সের পেটি ভারতে পাঠানোর কথা ছিল। জেরার মুখে তিনি স্বীকার করে নেন যে, সেই সময়ে তিনি খুবই তৃষ্ণার্ত ছিলেন, তাই জল খুঁজছিলেন। কিন্তু হাতের কাছে জল না থাকায় ফলের ঝুঁড়ি থেকে দুটি আম তুলে নেন তিনি। 

আরও পড়ুন- নাম বদলে ফেলল জইশ জঙ্গি গোষ্ঠী, বড়সড় আত্মঘাতী হামলার জন্য চলছে প্রস্তুতি

আরও পড়ুন- পুজোর আগেই সুখবর, দু-দিনের ব্যাঙ্ক ধর্মঘট আপাতত স্থগিত রাখা হল

এই ঘটনার পর ২০১৮ সালে পুলিশ তাকে তলব করে এবং এই ঘটনা প্রসঙ্গে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। পরে তাকে গ্রেফতারও করে পুলিশ, পরে তল্লাশি চালিয়ে অবশ্য তার কাছ থেকে কোনও চুরির জিনিস পাওয়া যায়নি। একজন সিকিউরিটি অফিসার জানিয়েছেন, সিসিটিভি ফুটেজে ওই ব্যক্তিকে আম চুরি করতে দেখা গিয়েছে। তবে অভিযুক্ত চাইলে আদালতের এই রায়ের বিরুদ্ধে ১৫ দিনের মধ্যে আপিল করতে পারে।