আজ ১৫ সেপ্টেম্বর। ২০০৭ সাল থেকে এই দিনটি আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবস হিসাবে পালিত হয়ে আসছে। ২০০৭ সাল থেকে রাষ্ট্রপুঞ্জের সদস্যভুক্ত দেশগুলিতে গণতন্ত্রের ওপর আগ্রহ সৃষ্টি এবং গণতন্ত্রের চর্চাকে উৎসাহ প্রদান করতেই জাতিসঙ্ঘের তরফে এই বিশেষ দিনটি পালনের জন্য ঘোষণা করা হয়। আর তার পর থেকেই প্রতি বছরই ১৫ সেপ্টেম্বর দিনটিকে আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবস হিসাবে পালন করা হয়ে আসছে। 

আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবসের এই বিশেষ দিনে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় টুইট করে দেশের সাংবিধানিক কাঠামোকে অক্ষুণ্ণ রাখার ডাক দিয়েছেন। সেইসঙ্গে নাম না করেই কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন তিনি। সাম্প্রতিক পরিস্থিতিকে- 'সুপার এমার্জেন্সি' বলে ব্যাখ্যা করেন তিনি। সেইসঙ্গে তিনি আরও বলেন, সাধারণ মানুষের সাংবিধানিক অধিকার এবং স্বাধীনতা রক্ষার জন্য যা যা করা দরকার তাই করা হবে। 

 

প্রসঙ্গত, গণতন্ত্র বলতে বোঝায় কোনো রাষ্ট্রের এমন একটি শাসনব্যবস্থা থাকবে যে সরকারি নীতি নির্ধারণ এবং সরকারের প্রতিনিধি নির্বাচনের ক্ষেত্রে প্রত্যেকটি নাগরিকের ভোটাধিকার প্রয়োগের ক্ষমতা থাকবে। শুধু তাই নয়, একটি গণতান্ত্রিক দেশ হল সেটাই যেখানে রাষ্ট্রের আইন প্রস্তাবনা, তৈরি ও প্রণয়নের ক্ষেত্রে দেশের সব নাগরিকের একটা সমান অংশগ্রহণের সুযোগ রয়েছে, যা কোনও নির্বাচিত প্রতিনিধির মাধ্যমে হয়ে থাকে। আর তাই সাধারণ মানুষের মধ্যে গণতন্ত্রের চর্চার বিষয়ে উৎসাহ প্রদানর জন্যই এই দিনটির ভূমিকা বিশেষভাবে তাৎপর্যপূর্ণ। 

তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষের জের, দিনহাটায় পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি দুষ্কৃতীদের

সদ্য হারিয়েছেন ছেলেকে, বিধবা পুত্রবধুর ফের বিয়ে দিয়ে মানবিকতার নজির গড়লেন শাশুড়ি

দিনভর উত্তপ্ত রইল উপত্যকা, পুঞ্চের তিন সেক্টরে ভারী গোলা বর্ষণ পাক সেনার

এই বিশেষ দিনে জাতিসঙ্ঘের মহাসচিব অ্যান্তেনিও গুতেরেস জানিয়েছে, বিগত কয়েক শতাব্দীর তুলনায় বর্তমানে গণতন্ত্র অতিরিক্ত চাপের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। আর তাই এই আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবসে তিনি জানিয়েছেন গণতন্ত্রকে বর্তমানে যেসব বাধার সম্মুখীন হয়েছে, সেগুলির সম্ভাব্য  সমাধানের পথ খুঁজে বের করা এবং গণতন্ত্রকে কীভাবে আরও বেশি শক্তিশালী করে তোলা যায় তারই সম্ভাব্য উপায় খুঁজে বের করা। এবারের আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবসের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হল 'অংশগ্রহণ'। সেইসঙ্গে এবছরের প্রতিপাদ্যে আরও বলা হয়েছে যে অন্তর্ভূক্তি , সমানাধিকার এবং অংশগ্রহণই হল গণতন্ত্রের মূল ভিত্তি।