করোনাভাইরাস সংক্রমণ রুখতে গোটা দেশ জুড়েই জারি করা হয়েছে লকডাউন। টানা ৪০ দিনের এই লকডাউনে  প্রায় স্বস্ত গোটা দেশ। গত ২০ এপ্রিল একটি নির্দেশিকা জারি করে বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে লকডাউন শিথিলও করা হয়েছে। কিন্তু এখন প্রশ্ন আর কতদিন লকডাউন জারি থাকবে দেশে। ইতিমধ্যে লকডাউন অনেকটাই শিথিল করেছে কেরল। অন্যদিনে দিল্লি, পঞ্জাব, পশ্চিমবঙ্গসহ একাধিক রাজ্য এখনও লকডাউন ইস্যুতে কড়া পদক্ষেপই নিয়েছেন। এই পরিস্থিতি দাঁড়িয়ে দেশের করোনা-সংকট ও লকডাউন ইস্যুতে এদিন বেশ কয়েকটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তবে মেঘালয়া জানিয়েছে আগামী ৩ মে-র পরেও রাজ্যে লকডাউন পুরোপুরি তুলে নেওয়া হবে না। 

 

এই বৈঠকেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী রাজ্যগুলির কাছে আবেদন জানিয়েছেন, লকডাউন তুলে দেওয়ার জন্য পরিকল্পনা গ্রহণ করতে। আগেই করোনা আক্রান্ত এলাকাগুলিকে চিহ্নিত করতে লাল, সবুজ আর কমলা জোনে ভাগ করা হয়েছিল পুরো দেশকে। সেই বিভাজনের কথা মাথায় রেখেই লকডাউন তুলে দেওয়ার পরিকল্পনা গ্রহণ করার কথা বলা হয়েছে। সূত্রের খবর, আগামী ৩ মে-র পর ধাপে ধাপে উঠে যেতে পারে লকডাউন। প্রথম দফায় লকডাউন তুলে নেওয়া হবে সবুজ জোন হিসেবে চিহ্নিত করোনামুক্ত এলাকায়। এদিনের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন দেড় মাসের  লকডাউনের কার্যকর করায় কয়েক হাজার মানুষের প্রাণ রক্ষা করা গেছে। 

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কথায় ভারতের অবস্থা বিশ্বের বাকি দেশগুলির থেকে অনেকটাই ভালো। ৩ ঘণ্টার এই বৈঠকে লকডাউন ছাড়াও দেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি নিয়েও আলোচনা হয়েছে। সূত্রের খবর দেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি খুব একটা সংকটজনক নয় বলেও  প্রধানমন্ত্রী  সবকটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের আশ্বস্ত করেছেন। তিনি বলেছেন অর্থনীতি নিয়ে এখনই চিন্তা করার মত কিছু নেই। বেশ কয়েকটি রাজ্য লকডাউন শিথিল করার পাশাপাশি কাজকর্ম পুর্নরায় শুরু করা আবেদন জানিয়েছিল। অধিকাংশ রাজ্যই এই মুহূর্তে রেল ও বিমান পরিবহনের ওপর নিষেধাজ্ঞা বজায় রাখার পক্ষেই সওয়াল করেছে। তাই রেল ও উড়ান যোগাযোগ আগামী ৩ মে-র পরেও বন্ধ থাকতে পারে বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। 

আরও পড়ুনঃ শুভেন্দু অধিকারীর গড়ে কেন্দ্রীয় দল, খতিয়ে দেখছে পাঁশকুড়া, তমলুক আর হলদিয়া হাসপাতাল ...

আরও পড়ুনঃ সেম্পেম্বর মাস থেকেই তৈরি হবে করোনার প্রতিষেধক, জল্পনা দানা বাঁধছে বিল গেটসের মন্তব্যে ...

আরও পড়ুনঃ প্রধানমন্ত্রীর করোনা ও লকডাউন নিয়ে ভার্চুয়াল বৈঠকে অনুপস্থিত বিজয়ন, হাজির থাকলেন মমতা ...

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন আগামী দিনগুলিতেও এই সংক্রমক জীবানুর বিরুদ্ধে গোটা দেশকেই কঠিন লড়াইয়ে সামিল হতে হবে। আর সেইজন্য সচেতনতার ওপরেও জোর দিয়েছেন তিনি। মন কি বাত অনুষ্ঠানেও প্রধানমন্ত্রী দেশেবাসীকে মাস্ক ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছিলেন।