রবিবার অবশেষে চন্দ্রযান ২-এর ল্যান্ডার বিক্রমের খোঁজ মিলেছে। তবে এখনও তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেনি ইসরো। এর মধ্যেই ইসরোর পরের চন্দ্র অভিযানের জল্পনা উসকে উঠল। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে ২০২৪ সালেই ফের চাঁদে অভিযান চালাবে ইসরো। বিজ্ঞানাদের দাবি এই অভিযান হবে আরও বড় এবং আরও ভালো। আর এই অভিযানে সঙ্গী হতে পারে জাপানও।

এক বিবৃতিতে ইসরো জানিয়েছে 'লুনার পোলার এক্সপ্লোরেশন' নামে এই অভিযানে ইসরো এবং জাপানের মহাকাশচর্চা কেন্দ্র জাপান অ্যারোস্পেস এক্সপ্লোরেশন এজেন্সি বা জাক্সা আপাতত এই যৌথ অভিযান চালানোর বিভিন্ন সম্ভাব্য দিক খতিয়ে দেখছে। সবক্কিছু ঠিক থাকলে দুই দেশ যৌথভাবে চাঁদের মেরু অঞ্চলে অভিযান চালাবে।

আরও পড়ুন - চাঁদের পর শুক্রগ্রহ থেকে সূর্য, ইসরোর হাতে আগামী দিনে রয়েছে আরও বড় বড় অভিযানের পরিকল্পনা

আরো পড়ুন - খোঁজ মিলল ল্যান্ডার বিক্রমের, এবার শুধু যোগাযোগের অপেক্ষা

আরো পড়ুন - শুধু চন্দ্রযান-২ নয়, গত ছয় দশকে ৬০ শতাংশ চন্দ্রাভিযান সাফল্য পেয়েছে, জানাল নাসা

আরও পড়ুন - ইসরোর চন্দ্রাভিযান তাঁদের কাছে অনুপ্রেরণা, ভবিষ্যতে একসঙ্গে কাজ করার বার্তা দিল নাসা

২০০৮ সালে 'চন্দ্রযান ২'-এর অনুমোদন দিয়েছিলেন তৎকালীন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং। সেই সময়ও চন্দ্রযান ২ মিশনটি হওয়ার কথা ছিল রাশিয়ার সঙ্গে যৌথ অভিযানে। ল্যান্ডারটি রাশিয়ারই দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু, সেই চুক্তি ২০১২ সালে ভেস্তে যায়। তারপর, ইসরো নিজেরাই ল্যান্ডার তৈরি করে।   

চলতি বছরের জুলাই মাসেই জাক্সার এক্সপ্লোরার হায়াবুসা ২ একডটি উপগ্রহের ঝুঁকিপূর্ণ ল্যান্ডিং সম্পূর্ণ করেছে। কিন্তু তারাও এখনও পর্যন্ত চাঁদের দক্ষিণ মেরু অঞ্চলে অভিযান চালায়নি। ভারতই প্রথম দেশ  হিসেবে চন্দ্রযান ২ পাঠিয়ে এই এলাকায় অবতরণের চেষ্টা করেছে। ২০১৭ সালে বেঙ্গালুরুতে মাল্টিস্পেস এজেন্সির বৈঠকেই ভারত-জাপান যৌথ চন্দ্র অভিযানের কথা শুরু হয়েছিল। এরপর ২০১৮ সালে জাপানে আন্তঃসরকার বৈঠকের সময় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও এই নিয়ে আসলোচনা করেছিলেন। চন্দ্রযান ২ অভিযানের পর চাঁদের দক্ষিণ মেরু সম্পর্কে আরও স্পষ্ট ধারণা পাওয়া যাবে। এরপরই এই যৌথ চন্দ্র অভিযানের পালে বাতাস লাগতে পারে।