২৬/১১ মুম্বই হামলার দায় নাকি হিন্দু সন্ত্রাসবাদীদের উপরে চাপানোর ছক কষেছিল লস্কর-ই-তৈবা। এমন চাঞ্চল্যকর দাবি করে হয়েছে 'স্বরাজ্য ম্যাগাজিন'-এর অনলাইন সংস্করণে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে। কিন্তু আজমল কাসব জীবন্ত ধরা পড়ে যাওয়ায় সেই পরিকল্পনা আর সফল হয়নি।

আরও পড়ুন - ২৬/১১-য় ৯/১১-র আতঙ্ক, আকাশসীমা লঙ্ঘন করল বিমান, বন্ধ হোয়াইট হাউস

প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে এই বিশেষ পরিকলল্পনাটা ছিল আবু জুন্দাল-এর। এই জুন্দাল ছিল ২৬/১১-র মূল ছয় পরিকল্পনাকারীদের একজন। সে মহারাষ্ট্রের বীদ এলাকার মানুষ। পরে পাকিস্তানে গিয়ে লস্কর-ই-তৈবায় যোগ দেয়। কাসব-এর মতো দাবার বোড়ে নয়, সে ছিল লস্কর বাহিনীতে সবচেয়ে উঁচু পদের ভারতীয়।

আরও পড়ুন - জেনেভা, টোকিও থেকে প্যারিস, পাক-বিরোধী প্রতিবাদ-বিক্ষোভে গর্জে উঠল বিশ্ব

২০১২ সালে জুন্দাল-কে ভারতের হাতে তুলে দিয়েছিল সৌদি আরব। 'স্বরাজ্য'-এর প্রতিবেদন অনুযায়ী এরপর জুন্দাল ও কাসবকে মুখোমুখি বসিয়ে যে জেরা করা হয়েছিল তাতেই নাকি হিন্দু সন্ত্রাসবাদিদের ঘাড়ে দোষ দেওয়ার ষড়ষন্ত্রের কথা প্রকাশ পায়। জুন্দাল তদন্তকারীদের জানিয়েছিল, ২০০৮ সালে মালেগাঁও বিস্ফোরণ কাণ্ডে ধৃতত স্বাধ্বী প্রজ্ঞা ও লেফটেন্যান্ট কর্নেল প্রসাদ পুরোহিত-কে গ্রেফতারের বদলা নিতেই হিন্দু সন্ত্রাসবাদীরা এই হামলা চালিয়েছে, এমনটাই দেখানোর পরিকল্পনা করেছিল সে।

আরও পড়ুন - ২৬/১১-র জঙ্গি দমনে ছিল দক্ষিণ আফ্রিকার একটি দল, প্রাণ বেঁচেছিল ১৫০ জনের

এর জন্য সন্ত্রাসবাদীদের পণবন্দী ও অন্যান্যদের সঙ্গে উর্দুর বদলে হিন্দিতে কথা বলতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। পত্রিকার দাবি হিন্দি ভাষায় স্নাতোকত্তর জুন্দাল নিজেই আজমল কাসবদের হিন্দি শেখানোর বার নিয়েছিল। গেরুয়া যোগাযোগ আরও স্পষ্ট করতে জঙ্গিদের কোমড়ে গেরুয়া রঙের কোমড়বন্ধও পরানো হয়েছিল। তাদের আইকার্ডে লেখা ছিল সমীর চৌধুরি-র মতো হিন্দু নাম।

সেইসঙ্গে জুন্দাল সংবাদমাধ্যমকে পাঠানোর জন্য একটি চিঠিও তৈরি করে। তাতে ঘটনার দায় স্বীকার করা হয়েছিল 'ডেকান মুজাহিদিন' বলে একটি কল্পিত গোষ্ঠীর নামে। প্রতিবেদন অনুযায়ী লস্কর চেয়েছিল, কোনও হিন্দু সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠী হামলা চালিয়ে একটি কাল্পনিক মুসলিম জঙ্গি দলের নামে দায় চাপানোর চেষ্টা করছে, তদন্তকারীদের মনে এইরকম একটা ছবি তৈরি করতে।

আরও পড়ুন - মুম্বই হামলার ১১ বছর, নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপনে রাষ্ট্রপতি থেকে উপরাষ্ট্রপতি

কিন্তু, আজমল কাসব ধরা পড়ে যাওয়াতেই সেই লস্করের সেই ছক ভেস্তে যায়। স্বরাজ্য পত্রিকার দাবি লস্করের পরিকল্পনাকারীরা পুরো ছকটাই তৈরি করেছিল সব সন্ত্রাসবাদীই মারা যাবে এইরকমটা ধরে নিয়ে। কেউ জীবন্ত অবস্থায় ভারতীয় কর্তৃপক্ষের হাতে ধরা পড়বে তা তারা ভাবেনি।

'ছিটকে দেওয়া যাবে না', নরম শব্দে জঙ্গিদের চরম বার্তা দিলেন রতন টাটা