নতুন আইনের প্রতিবাদে দিল্লি ও সংলগ্ন এলাকায় যখন প্রবল কৃষক বিক্ষোভ চলছে তখন আরও একবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কৃষি আইনের সমর্থনেই মুখ খুললেন। মন কি বাত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আরও একবার বললেন নতুন কৃষি আইনের ফলে কৃষকরা আরও অনেক বেশি সুবিধে পাবেন। তাঁর কথায় আগামী দিনে কৃষকদের সমৃদ্ধ করবে এই কৃষি আইন। দীর্ঘ দিন ধরে দেশের কৃষকরা যেসব দাবি গুলি করছিল সেগুলি পুরণ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। তিনি আরও বলেন ভারত সরকার অনেক বিচার ও বিবেচনার পর এই আইনগুলি লাগু করেছেন। আর এই আইনগুলির জেরে কৃষকদের সীমাবদ্ধতার দিন শেষ হয়েছে। এই আইনগুলিকে কাজে লাগিয়ে কৃষকরা সমৃদ্ধির শিখরে পৌঁছে যাবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি। 

পথ চলার আগেই রেকর্ড তৈরি করল বুলেট ট্রেন, সবথেকে দামি চুক্তি করল ...

মন কি বাত অনুষ্ঠানে বাংলায় কবিতা বললেন নরেন্দ্র মোদী, ঋষি অরবিন্দ থেকে গুরু নানককে স্মরণ করেন তিনি ...

 কৃষি আইনের কথা বলতে গিয়ে এদিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী মহারাষ্ট্রের ধুলের কৃষক জীতেন্দ্র বাহজির প্রসঙ্গ উত্থাপন করেন। তিনি বলেন, ভূট্টা  চাষ করেছিলেন সেই কৃষক। তা তিনি বিক্রিও করেছিলেন ৩ লক্ষ ৩২ হাজার টাকায়। ক্রেতা তাঁকে প্রথম দফায় ২৫ হাজার টাকা দিয়েছিল কিন্তু পরবর্তী কিস্তি মেটাতে গাফিলতি করছিল। তারপরই বাহজি নতুন কৃষি আইনকে হাতিয়ার করেই ক্রেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন। আইন অনুযায়ী এসডিও এই মামলার খুব তাড়াতাড়ি শুনাকি করে। ফরে কিস্তির বাকি টাকা হাতে পেতে আর সমস্যায় পড়তে হয়নি বাহোজিকে। 

রবিবার ৭১তম মন কি বাত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সমাজ সেবার ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন। পাশাপাশি দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নের জন্য প্রাক্তনীদের এগিয়ে আসার কথা বলেন। তিনি বলেন বিশ্ব বিদ্যালয়ের পাশাপাশি কলেজ, স্কুল ও প্রাথমিক স্কুলগুলির উন্নয়ন ও পড়ুয়াদের স্বার্থে এগিয়ে আসতে হবে প্রাক্তনীদের। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী তাঁর মন কি বাত অনুষ্ঠানে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়েও সচেতন করেন দেশের মানুষকে। তিনি বলেন প্রায় এক বছর হতে চলল মহামারির সঙ্গে লড়াই করছে বিশ্ব। শীতের মরসুমে করোনার হাত থেকে রেহাই পাওয়ায় জন্য সচেতনতা অবলম্বন করতে হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।