অরুণ জেটলির প্রয়াণে শোকস্তব্ধ গোটা দেশ। সরকারপক্ষ তো বটেই,জেটলির প্রয়াণে সমবেদনা জানিয়েছেন খোদ বিরোধী দলের রাঘব বোয়ালরা। এই দলে নাম লিখিয়েছেন দিল্লির মুখ্য়মন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালও। জানলে অবাক হবেন,এক সময় জেটলিকেই দুর্নীতিগ্রস্ত বলেছিলেন কেজরি।

দেশের প্রধানমন্ত্রী বলছেন,একজন প্রিয় বন্ধু হারালাম। রাজ্য়ের মুখ্য়মন্ত্রী বলছেন, সব দলের কাছেই সমান সমাদৃত ছিলেন জেটলি। এক কথায় দেশের বিকাশে জেটলির অবদান যে অনস্বীকার্য, তা মেনে নিয়েছেন সবাই। দিল্লির মুখ্য়মন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল যেমন বলেছেন,অসময়ে জেটলির চলে যাওয়াটা দেশের কাছে একটা বড় ক্ষতি। দেশ জেটলির মতো একজন আইনি নক্ষত্র ও রাজনৈতিক নেতাকে খুব মনে করবে। তবে কেজরিওয়াল এখন যাই বলুক না কেন,এক সময় দুর্নীতির জন্য় দেশের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রীকেই কাঠগড়ায় তুলেছিলেন তিনি।

আরও পড়ুন : অস্ত গেলেন অরুণ, পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে আজ

আরও পড়ুন : থাকেননি বিয়েতে, নিজের বাড়িতে শেহবাগের বিয়ে দেন জেটলি

সেই সময় দিল্লি ডিস্ট্রিক্ট ক্রিকেট অ্য়াসোসিয়েশন বা ডিডিসিএ-র দুর্নীতির জন্য় অরুণ জেটলিকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে ছিলেন কেজরিওয়াল। কেজরির অভিযোগ, জেটলিডিডিসিএ-র প্রধান পদে থাকাকালীন আর্থিক দুর্নীতি হয়েছিল। যার দায় কোনওভাবেই ঝেড়ে ফেলতে পারেন না জেটলি।  ২০১৫ সালের এই অভিযোগর পরই কেজরিওয়াল ও আপের চার নেতার বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করেন জেটলি। ১০ কোটি টাকার মানহানির মামলায় অভিয়ুক্ত হন কেজরি ছাড়াও কুমার বিশ্বাস,রাঘব চাড্ডা, আশুতোষ,দীপক বাজপেয়ী ও সঞ্জয় সিং। শেষ পর্যন্ত কেজরি সহ আপ নেতারা ক্ষমা চাওয়ায় আপসে মামলা মিটিয়ে নেন জেটলি। সেবারও কেজরিকে ক্ষমা করে দেন দেশের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী। 

আরও পড়ুন: প্রয়াণের আগে শেষ বার্তা, কী বলে গেলেন অরুণ জেটলি

আরও পড়ুন : চলে গেলেন জেটলি, রেখে গেলেন ১১ মাইলস্টোন

পরে দিল্লি ডিস্ট্রিক্ট ক্রিকেট অ্য়াসোশিয়েশনের জন্য় জেটলির পাশে দাঁড়ান দিল্লির ক্রিকেটাররা। বীরেন্দ্র শেহবাগ,গৌতম গম্ভীরের মতো ক্রিকেটাররা বলেন, ডিডিসিএ জেটলি আসার পর আমূল পরিবর্তন হয়েছে। এমনকী যোগ্য়তা থাকলেও দিল্লি থেকে যারা টিম ইন্ডিয়ায় সুযোগ পাচ্ছিলেন না তাঁদেরও ব্য়বস্থা করেন বিজেপির এই হেভিওয়েট নেতা। সম্প্রতি অরুণ জেটলির প্রয়াণেও সেই একই কথা বলেছেন টিম ইন্ডিয়ার প্রাক্তন সদস্য়।