Asianet News BanglaAsianet News Bangla

ফের সার্জিকাল স্ট্রাইকের প্রস্তুতি? পাক অধিকৃত কাশ্মীরের জঙ্গিঘাঁটি গুঁড়িয়ে দিতে গোপনে কীভাবে তৈরি হচ্ছে ভারত

সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে, মেক-টু প্রকল্পের আওতায় প্রস্তাব চেয়ে পাঠানো হয়েছে, যাতে বলা হয়েছে ৫০ শতাংশ দেশীয় সামগ্রী সহ মাল্টি-রোটার ড্রোন তৈরি করতে। এই ড্রোনগুলো একটানা তিন ঘণ্টা তিন কিলোমিটার উচ্চতা পর্যন্ত উড়তে পারবে এবং ৫০ কিলোমিটার দূর থেকে আক্রমণ করতে সক্ষম হবে। 

small deadly drones will destroy terrorist camps in PoK, India is preparing bpsb
Author
First Published Sep 5, 2022, 7:41 AM IST

দেশে ছোট আকারের প্রাণঘাতী ড্রোন প্রস্তুত করা হচ্ছে, যা প্রয়োজনে কয়েক মিনিটের মধ্যে পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরে (পিওকে) সন্ত্রাসবাদীদের এবং তাদের শিবিরগুলি ধ্বংস করবে। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন সেনাবাহিনী ছোট সশস্ত্র ড্রোন তৈরির প্রক্রিয়া শুরু করেছে। প্রথম ধাপে ৪৭৫টি ড্রোন তৈরি ও সংগ্রহ করা হবে। এগুলো হবে মাল্টি রোটার ড্রোন যা পাঁচ কেজি ওজনের একাধিক প্রাণঘাতী পেলোড বহন করতে সক্ষম।

সেনা সূত্র জানায়, সেনাবাহিনীতে ড্রোন অন্তর্ভুক্ত করার পর এখন সব মনোযোগ সশস্ত্র ড্রোন তৈরির দিকে। সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে, মেক-টু প্রকল্পের আওতায় প্রস্তাব চেয়ে পাঠানো হয়েছে, যাতে বলা হয়েছে ৫০ শতাংশ দেশীয় সামগ্রী সহ মাল্টি-রোটার ড্রোন তৈরি করতে। এই ড্রোনগুলো একটানা তিন ঘণ্টা তিন কিলোমিটার উচ্চতা পর্যন্ত উড়তে পারবে এবং ৫০ কিলোমিটার দূর থেকে আক্রমণ করতে সক্ষম হবে। 

এর অর্থ PoK এর প্রায় পুরো এলাকা তাদের অধীনে চলে আসবে। মাল্টি রোটার ড্রোনগুলির একাধিক পেলোড বহন করার স্থান এবং ক্ষমতা রয়েছে। তাই এই ড্রোনগুলিতে অনেক গাইডেড বিস্ফোরক বা পাঁচ-পাঁচ কেজির অস্ত্র বহন করা যেতে পারে যেমন মর্টার বা গাইডেড বোমা ইত্যাদি। কন্ট্রোল রুম থেকেই লক্ষ্য নির্ধারণ করে ড্রোন থেকে নির্ভুল হামলা চালানোও সম্ভব হবে।

small deadly drones will destroy terrorist camps in PoK, India is preparing bpsb

ভারত সোয়ার্ম ড্রোনকে সেনাবাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত করেছে, অন্যদিকে নৌবাহিনী, কোস্টগার্ডে নজরদারির জন্য হেলিকপ্টারের পরিবর্তে ড্রোন ব্যবহার করা হচ্ছে। নজরদারির জন্য, সোয়ার্ম ড্রোন সহ অনেক ধরণের ড্রোন দেশে তৈরি হচ্ছে এবং ভারতীয় বাহিনী এই বিষয়ে অনেকাংশে স্বাবলম্বী হয়েছে।

প্রিডেটর ড্রোন কেনার প্রচেষ্টা
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে প্রিডেটর ড্রোন কেনারও চেষ্টা করছে প্রতিরক্ষা মন্ত্রক। এগুলি সেই ড্রোন যার মাধ্যমে আমেরিকা বেছে বেছে তার শত্রুদের নিকেশ করছে। সম্প্রতি এই ড্রোন হামলায় জঙ্গিনেতা আল জাওয়াহিরি নিহত হয়। এই ড্রোনটিতে বিস্ফোরক নেই কিন্তু একটি ছোট ক্ষেপণাস্ত্র রয়েছে। এটির সাহায্যে, সে সরাসরি লক্ষ্যবস্তুতে আক্রমণ করে এবং সাধারণ মানুষ বা সম্পত্তির ক্ষতি করে না। সূত্রের খবর, এই ধরনের ৩০টি ড্রোন কেনার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনা চলছে। স্থল, জল ও নৌবাহিনীকে এই ধরনের ১০টি ড্রোন দেওয়া হবে।

আরও পড়ুন - মুখোমুখি হবে ভারত পাকিস্তান? আন্তর্জাতিক মঞ্চে মোদীর সামনে শাহবাজ শরিফ

DRDO সশস্ত্র ড্রোনও তৈরি করছে
রুস্তম এবং ঘটক, DRDO-এর দুটি UAV, গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক ছুঁয়েছে৷ এগুলো নজরদারির পাশাপাশি সশস্ত্র ড্রোন হিসেবে তৈরি করা হচ্ছে। অনেকাংশে, ডিআরডিও এতে সফল হয়েছে, তবে তাদের মধ্যে অস্ত্র লাগিয়ে পরীক্ষা করা বাকি। এই দুটি যানই UAV হিসেবে সফল হয়েছে।

ড্রোন বিরোধী প্রযুক্তি নিয়ে কাজ
এ ছাড়া ড্রোন-বিরোধী প্রযুক্তি তৈরির কাজও চলছে বলে প্রতিরক্ষা মন্ত্রক সূত্রে জানা গেছে। এর জন্য ইন্টিগ্রেটেড ড্রোন ডিটেকশন সিস্টেম তৈরি করা হচ্ছে। এর পাশাপাশি নিম্নস্তরের রাডার তৈরির কাজও শুরু হয়েছে, যার মাধ্যমে শত্রুদের ড্রোন হামলা বন্ধ করা যাবে।

আরও পড়ুন - আগ্রহী নয় ভারত, তবু এসসিও সম্মেলনে মোদীর সঙ্গে বৈঠকে বসতে পা বাড়িয়ে চিন

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios