টিডিএস এবং টিসিএস - বুধবার দুই করের হারই বিদ্যমান হারের তুলনায় ২৫ শতাংশ কমানোর কথা ঘোষণা করলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ। তাঁর মতে এটি করদাতাদের ব্যায়ের জন্য আরও তহবিল জোগাবে। সেইসঙ্গে আয়কর রিটার্নের সময়সীমা বাড়িয়ে ৩০ নভেম্বর করা হল।

টিডিএস (ট্যাক্স ডিডাকটেড অ্যাট সোর্স) অর্থাৎ উৎসে কেটে নেওয়া কর এবং টিসিএস (ট্যাক্স কালেকটেড অ্যাট সোর্স) অর্থাৎ উৎসে সংগৃহীত ট্যাক্সের এই হ্রাস - চুক্তি, পেশাদারি বেতন, সুদ, ভাড়া, লভ্যাংশ, কমিশন, সরবরাহ, দালালি ইত্যাদি অর্থপ্রদানের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। এই হ্রাস বৃহস্পতিবার থেকে কার্যকর হবে। লাগু থাকবে ২০২০-২১ আর্থিক বছরের বাকি অংশের জন্য, অর্থাৎ ২০২১ সালের ২১ মার্চ পর্যন্ত। এতে করে জনগণের হাতে ৫০,০০০ কোটি টাকা অতিরিক্ত মুক্তি পাবে বলে জানিয়েছেন সিতারমন ।

একইসঙ্গে ২০১৯-২০ আর্থিক বছরের জন্য সকল আয়কর রিটার্নের নির্ধারিত তারিখ ২০২০ সালের ৩১ জুলাই এবং ৩১ অক্টোবর থেকে বাড়িয়ে চলতি বছরের ৩০ নভেম্বর করেছে। ট্যাক্স অডিটের নির্ধারিত তারিখ ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে ২০২০ সালের ৩১ অক্টোবরে পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী আরও ঘোষণা করেছেন, কর বিভাগ-কে অবিলম্বে মালিকানা, অংশীদারিত্ব, এলএলপি এবং সমবায়সহ সমস্ত নন-কর্পোরেট ব্যবসায়িক পেশাগুলিকে এবং চ্যারিটিবল ট্রাস্টগুলিকে, বাকি থাকা ট্যাক্স রিফান্ড ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ বলেছেন এই পদক্ষেপের পিছনে সরকারের মূল লক্ষ্য হল, মানুষকে কর মেনে চলার বিষয়ে খুব বেশি যাতে চিন্তা করতে না হয়। যাঁরা 'বিবাদ সে বিশ্বাস' প্রকল্পের সুবিধা নিয়েছেন,  তাঁদের কোনও অতিরিক্ত অর্থ-জরিমানা ছাড়াই ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত অর্থপ্রদানের সময় দেওয়া হয়েছে।


নাক-গলা-ফুসফুস হয়ে কীভাবে সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়ে করোনাভাইরাস, জানুন ছবিতে ছবিতে

'মাংস খেলেই ভয় সংক্রমণের', বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ঘোষণা নিয়ে চরম বিভ্রান্তি

 

চিন-কে নিষিদ্ধ করতে নয়া আইন, ঠান্ডা যুদ্ধের পর আমেরিকায় কি ফের কমিউনিস্ট জুজু