রবিবার সুদানের দুটি উপজাতি সম্প্রদায়ের মধ্যে প্রবল সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। আর এই সংঘর্ষ এতটাই প্রবল আকার ধারণ করে যে, এর জেরে প্রাণ হারিয়েছেন মোট ৩৭ জন এবং আহত হয়েছেন প্রায় ২০০ জনেরও বেশি মানুষ। 

সুদানে পূর্বাঞ্চলের একটি রাজ্য়ে উপজাতি গোষ্ঠীর মধ্যেকার সংঘর্ষ এতটাই ভয়াবহ আকার ধারণ করে রবিবার সেখানে জারি করা হয়েছে জরুরী অবস্থা। পাশাপাশি এই গোটা বিষয়ে তদন্তেরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে খবর। জানা গিয়েছে, রেড সী রাজ্যের রাজধানী পোর্ট সুদানে উপজাতি গোষ্ঠী বনি আমের এবং নুবার মধ্যে ব্যপক সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। প্রাথমিকভাবে ১৬ জন মানুষের নিহতের খবর পাওয়া গেলেও, শেষ পাওয়া খবর অনুসারে ৩৭ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। 

শেষ হল এক অধ্যায়, প্রয়াত দেশের প্রথম মহিলা ডিজিপি

খবর পেয়ে সংঘর্ষ দমনে পাঠানো হয়েছে নিরাপত্তা বাহিনী। তবে এখনও পর্যন্ত স্পষ্ট নয়, যে ঠিক কী কারণে দুই উপজাতি গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধল। সুদানের সার্বভৌম কাউন্সিল এই সংঘর্ষের কারণটি খুঁজে বের করার জন্য একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করেছে। সেই কমিটি-তে আরও বলা হয়েছে, এই সংঘর্ষের নেপথ্যে যাঁরা আছে, তাদের উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া হবে এবং এর জেরে যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাঁদেরও ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে। 

ভারত-পাকিস্তানের যাবতীয় ইস্যুই দ্বিপাক্ষিক প্রকৃতির, ট্রাম্পের সঙ্গে বৈঠকে জানালেন মোদী

প্রসঙ্গত, প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ওমর বশিরকে ক্ষমতাচ্যুত করার পর থেকে সুদানে একটা হিংসার আবহ তৈরি হয়েছিল। শাসক এবং তার নিরাপত্তা প্রধানকে তাদের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্তে বিরুদ্ধে একাধিক গণসমাবেশ ও বিক্ষোভ শুরু হয়েছিল। যদিও ট্রানজিশনাল মিলিটারি কাউন্সিল (টিএমসি) দুই বছরের মধ্যে নতুন রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। আর তার তাৎক্ষণিক পরিবর্তনের দাবিতেই বিক্ষোভ চলছে বলে খবর।