মাত্র ১২ মিনিটের হাঁটা। তবে পৃথিবীর বুকে নয়, মহাকাশে। ১৯৬৫ সালে সেই ১২ মিনিটের হাঁটাতেই ইতিহাস গড়েছিলেন সোভিয়েত যুগের রাশিয়ান নভোশ্চর আলেক্সেই লিওনভ। তিনিই ছিলেন প্রথম স্পেস ওয়াকার। শুক্রবার দীর্ঘ রোগ ভোগের পর ৮৫ বছর বয়সে দেহাবসান হল তাঁর। তাঁর মৃত্য়ুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছে রুশ মহাকাশ সংস্থা রসকসমস।

১৯৬১ সালে প্রথম মানুষ হিসেবে মহাকাশ সফর করেছিলেন আরেক রুশ মহাকাশচারী ইউরকি গ্যাগারিন। তাঁর ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলেন লিওনভ। তাঁরা দুইজনে একসঙ্গেই মহাকাশ যাত্রার প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন।  

সেই সময় আমেরিকা ও রাশিয়ার মধ্যে ঠান্ডা যুদ্ধ চলছিল। আমেরিকা ও রাশিয়ার মধ্যে মহাকাশ দখলের জোর প্রতিযোগিতা।  ১৯৬৫ সালে আমেরিকার ১০ দিন আগেই ভস্তক ২ মহাকাশযান থেকে বেরিয়ে ১২ মিনিট ৯ সেকেন্ড মহাকাশে ভ্রমণ করে টেক্কা দিয়েছিলেন আমেরিকাকে।

কেমন ছিল সেই অভিজ্ঞতা? ২০১৫ সালে এক সাক্ষাতকারে লিওনভ জানিয়েছিলেন, তিনি ধীরে ধীরে মহাকাশযান থেকে বের হয়েছিলেন। বাইরেটা চিল একেবারে কালো কালির মতো কালো। আর তার মধ্যে ঝকঝকে কিছু নক্ষত্র। সূর্যের তেজ ছিল এতটাই যে তিনি সহ্যই করতে পারেননি। তিনি সেখান থেকে পৃথিবীর ছবি তুলেছিলেন। তাঁর নিজের দেশের ছবি তুলেছিলেন। লিওনভ জানিয়েছিলেন, অত সুন্দর দৃশ্য তিনি কখনও দেখেননি।

১৯৭৫ সালে, তিনি ফের মহাকাশে ফিরে গিয়েছিলেন। সুয়েজ ১৯ মহাকাশযানের তিনিই ছিলেন কমান্ডার। তাঁকে দুইবার রাশিয়ার সর্বোচ্চ সম্মান হিরো অব দ্য সোভিয়েত ইউনিয়ন উপাধি দেওয়া হয়েছিল। তাঁর মৃত্যুকে বড় বিপর্যয় বলে মন্তব্য করেছে রাশিয়ার মহাকাশচর্চা মহল।