স্মার্ট যুগে ইন্টারনেটের দৌলতে বহু কিছুই ভাইরাল হয়। কখনও উঠে আসে মানুষ সুপ্ত প্রতিভা, কখনওবা ভাইরাল হওয়ার নেশায় করা উচিত নয় এমন কাজও  করে বসে মানুষ। তবে এর সত্যাসত্য যাচাই সব সময় সম্ভব হয় না। তাই অনেক কিছু খবর ভাইরাল হলেও তাতে সন্দেহ থেকেই যায়। যেমন সম্প্রতি একটি মাছের ছবি ঝড় তুলেছে ফেসবুক থেকে টুইটার সর্বত্র। শিরোনামেই বুঝতে পারছেন কেন তা সকলের নজর কেড়েছে। 

বদলে গেল সোশ্যাল সাইট ফেসবুকের লোগো, কারণটা কী

হ্যাঁ, অদ্ভুত যে কোনো বিষয়েই চোখ পড়ার কথা। আর এক্ষেত্রেও হয়েছে তেমনটাই। চিনের একটি গ্রামের একটি জলাশয়ে নাকি দেখা গিয়েছে এই মাছটিকে। মাছটির মাথার দিকের অংশটি মানুষের মুখের মতো, অথচ বাকি দেহটি অবিকল যে কোনো মাছের মতোই। আর অদ্ভুত দর্শন এই মাছের একটি স্ক্রিনশটই ঘোরাফেরা করছে ইন্টারনেটে। আর এই ছবি, ভিডিওকে কেন্দ্র করেই দানা বাঁধছে একের পর এক প্রশ্ন।

টাট্টু ঘোড়া উঠল ট্রেনে, বেজায় খুশি ক্যালিফোর্নিয়ার যাত্রীরা

স্ক্রিনশট স্পষ্ট না হওয়ায়, বুঝতে একটু সমস্যা হতে পারে। কিন্তু কিছুটা আন্দাজ করে বলা যায়, যে মাছটির ছবি ধরা পড়েছে, তার মাথার দিকটির সঙ্গে মানুষের মাথার সামঞ্জস্য রয়েছে। তবে শরীরের বাকি অংশটি মাছের মতোই। আর এখানেই যত গোল বেধেছে। ইতিমধ্যেই এই ছবিকে কেন্দ্র করে টুইটারে ঝড় উঠেছে। অনেকেই যেখানে অবাক হচ্ছেন এই ছবি দেখে, সেখানে আবার অনেকে মজা করতে ছাড়ছেন না। এমনকি কয়েকজন তো মিম-ও তৈরি করে পোস্ট করে ফেলেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। আবার একটি জলাশয়ে একাধিক মানুষের মাথাওয়ালা মাছ ঘুরে ফিরে বেড়াচ্ছে এমনই ভিডিও তৈরি করে হাসির রোল তুলেছেন অনেকেই।

কানে অসহ্য যন্ত্রণা, চিকিৎসক হাত দিতেই বেরিয়ে এল একের পর এক আরশোলা

অদ্ভুত দর্শনের যে মাছটি ভাইরাল হয়েছে, সেখানে দেখা যাচ্ছে মাছটির একটি নাক, দুটি চোখ এবং একটি মুখ রয়েছে যার মানুষের মুখের হুবহু মিল রয়েছে। ১৪ সেকেন্ডের একটি ভিডিওতে দেখা মিলেছে এই মাছের। ইতিমধ্যেই লক্ষ লক্ষ মানুষ এই ভিডিওটি দেখে ফেলেছেন। শেয়ারও হচ্ছে প্রচুর। তবে কতটা সঠিক এই ভিডিও তা নিয়ে কিন্তু প্রশ্ন তুলছেন অনেকেই। এশিয়ানেট নিউজ বাংলা-র পাঠকদের কি মনে হয়, জানান কমেন্ট করে।