দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার রাজনীতিতে বরাবারই চিনের বন্ধু দেশ হিসেবে নিজের পরিচয় দিয়ে এসেছে মায়ানমার। কিন্তু এবার সেই মিত্র দেশ মায়ানমারই চিনের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে সরব হল। শুধু তাই নয় বিশ্বের কাছে সন্ত্রাস দমনে  সাহায্যের আর্জি নিয়েও দ্বারস্থ হলেন মায়ানমারের সেনা প্রধান। চিন মায়ানমারের জঙ্গি গোষ্ঠীগুলিকে আগ্নেয়াস্ত্র ও অর্থ দিয়ে সাহায্য করছে  বলে অভিযোগ। 

সম্প্রতি রাশিয়ার একটি টিভি চ্যানেলে সাক্ষাৎকার দিয়েছিলেন মায়ানমারের সিনিয়র জেনারেল মিন আং হ্লুইং। তিনি বলেছেন দেশের সক্রিয় সন্ত্রসবাদী সংগঠনগুলির পিছনে রয়েছে একটি শক্তিশালী সেনাবাহিনী। আর সেই শক্তিশালী সেনাবাহিনীর উদাহরণ দিতে গিয়ে তিনি টেনে নিয়ে এসেছেন চিনের প্রসঙ্গ। মায়ানমারের সেনাবাহিনীর মুখপত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জাও মিন তুন পরে বিষয়টি পরিষ্কার করে  বলেন সেনা প্রধান বলতে চেয়েছেন  আরাকান আর্মি, আরাকান রোহিঙ্গা সালভেশন আর্মিরর মত সন্ত্রাসবাদী দলগুলিকে একটি শক্তিশালী সেনা বাহিনী মদত দিচ্ছে। পাশাপাশি চিন সীমান্তের অবস্থিত রাইখান রাজ্যের জঙ্গিদের কথাও উঠে এসেছে সেই প্রসঙ্গে। আরাকান সেনাবাহিনীর পিছনে একটি বিদেশী দেশ রয়েছে বলেন উল্লেখ করে তিনি বলেছিলেন, চিনের তৈরি অস্ত্রগুলিই ২০১৯ সালে দেশের সামরিক বাহিনীর ওপর প্রয়োগ করেছিল দেশের জঙ্গি সংগঠন। 

লাদাখ সীমান্ত উত্তাপের আঁচ পড়তে পারে সমুদ্রেও, চিনের গতিবিধির ওপর নজর রাখতে ভারতীয় নৌবাহিনীর কৌশল ...

চিনের বিরুদ্ধে 'ডিজিটাল স্ট্রাইক' ভারতের, ৫৯টি অ্যাপ ব্যানের পক্ষে সওয়াল কেন্দ্রীয় আইন মন্ত্রীর ...

সন্ত্রাসবাদ প্রসঙ্গে মায়ানমারের সেনা প্রধানের বক্তব্য হল একটি দেশ তার মাটিতে চলা সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ বন্ধ করতে সক্ষম। কিন্তু সন্ত্রাসবাদীদের পিছনে কোনও শক্তিশালী সেনাবাহিনীর হাত থাকলে তা খুবই দুষ্কর হয়ে ওঠে। পাশাপাশি সেনা প্রধান সন্ত্রাস দমনের ওপর জোর দিয়ে দেশগুলির ওপর পারস্পরিক বোঝাপড়া ও সহযোগিতা বাড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন।

 মধ্যপ্রদেশে জ্যোতিরাদিত্যর 'মিশন' সফল, 'মন্থন থেকে উঠে আসা বিষ পান'-এর সঙ্গেই তুলনা শিবরাজের ...
নাৎসি জার্মানির বিরুদ্ধে রাশিয়ার ৭৫ তম বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে চিন ভারতের মত প্রতিবেশী দেশগুলির সঙ্গে উপস্থিত ছিল মায়ানমারও।  সেই রাশিয়া সফরেই নাম না করে চিনের বিরুদ্ধে উষ্মা প্রকাশ করেন মায়ানমারের সেনা প্রধান।