আবারও চিনের বিরুদ্ধে হুংকার ছাড়লেন কেন্দ্রীয় আইন মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ।  এদিন সাংবাদিক বৈঠকে তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে সুরেই সুর মিলিয়ে বলেন যাঁরা আমাদের সীমান্তের দিকে কুদৃষ্টি দিয়েছে তাদারে কী ভাবে শিক্ষা দিতে হয় তা গোটে দেশ জানে। 

রবিশঙ্কর প্রসাদ জানিয়েছেন ভারতের সুরক্ষা ও সর্বভৌম্যত্বের জন্য দেশবাসীর ডিজিটাল সুরক্ষা ও গোপনীয়তা বজায় রাখা অত্যন্ত জরুরি। আর সেই কারণেই কেন্দ্রীয় সরকার টিকটকসহ  ৫৯টি অ্যাপ নিষিদ্ধ ভারত জানে সীমান্ত কী করে সুরক্ষিত রাখতে হয়। যারা আমাদের সীমান্তের দিকে নজর দিয়েছে তাদের চোখে চোখ রেখে অবস্থান করছে দেশ। ভারত যে ডিজিটাল স্ট্রাইক করতে পারে সেটাও প্রমাণ করে দিতে সক্ষম।  রবিশঙ্কার প্রসাদ আরও বলেছেন ভারত শান্তি বজায় রাখার পক্ষেই। কিন্তু ভারতের দিকে কেই কুনজর দিলে ভারত তা কখনই বরদাস্ত করবে না। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে  কথা প্রসঙ্গে রবিশঙ্কর প্রসাদ জানিয়ে দিয়েছেন চিনের অগ্রাসন নীতির বিরুদ্ধে ভারত ডিজিটাল স্ট্রিইকেরই পন্থা অবলম্বন করেছে কেন্দ্রীয় সরকার।

কেন্দ্রীয় আইন মন্ত্রী বলেছেন, ১৫ জুন গালওয়ান নদী উপত্যকায় সংঘর্ষের কারণে আমাদের ২০ জন সৈন্য নিহত গেছে। তবে প্রতিপক্ষ চিনের ক্ষতি আরও অনেক বেশি। চিন এখনও পর্যন্ত সরকারিভাবে ঘোষণা করেনি তাদের দেশে কত জন সৈন্যের মৃত্যু হয়েছে গালওয়ান সংঘর্ষের জেরে।  তবে ভারতীয় সৈন্যদের মতে চিনের ৪৫ জনের মৃত্যু হয়েছে।

শর্তসাপেক্ষে 'করোনিল' বিক্রিতে ছাড় কেন্দ্রের, উচ্ছসিত যোগগুরু রামদেব ...

মধ্যপ্রদেশে জ্যোতিরাদিত্যর 'মিশন' সফল, 'মন্থন থেকে উঠে আসা বিষ পান'-এর সঙ্গেই তুলনা শিবরাজের ...

লাদাখ সীমান্ত উত্তাপের আঁচ পড়তে পারে সমুদ্রেও, চিনের গতিবিধির ওপর নজর রাখতে ভারতীয় নৌবাহিনীর কৌশল ...

গত সোমবারই আচকমাই কেন্দ্রীয় সরকার ঘোষণা করেছে ভারতে অত্যন্ত জনপ্রিয় টিকটক, হ্যালো, শেয়ারইটের মত ৫৯টি চিনা অ্যাপ ব্যান করা হয়েছে। জাতীয় সুরক্ষার কথা মাথায় রেখেই অ্য়াপগুলি ব্যান করা হয়েছে বলে ঘোষণা করা হয়েছিল। আগেই কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা জানিয়েছেন অ্যাপের মাধ্যমে তথ্য পাচার করছে চিন। কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থাও বেশ কয়েকটি অ্যাপের নাম উল্লেখ করেছিল। সূত্রের খবর সেই অ্যাপগুলিই ব্লক করা হয়েছে। যা এখনও বরদাস্ত করতে পারেনি চিন। অ্যাপ ব্যানের পরই ভারতের বিরুদ্ধে রীতিমত হুংকার ছেড়েছে বেজিং।