করোনা ভাইরাস। নামটা শুনলেই প্রত্যেকেই যেন আতঙ্কিত। করোনা আতঙ্কে ইতিমধ্যেই ভয়ে কাঁপছে চিন।
মুহূর্তের মধ্যে একজনের থেকে আরেকজনের শরীরে ছড়িয়ে পড়ছে এই ভাইরাস।  মানুষের নিঃশ্বাস প্রশ্বাসের সঙ্গেই ছড়িয়ে যাচ্ছে এই রোগের জীবানু। কিন্তু এই করোনা ভাইরাস আসলে কী। আতঙ্কের আর এক নাম করোনা ভাইরাস। করোনা ভাইরাসের বাহক হল মানুষ। মানুষের সংস্পর্শেই সংক্রমিত হচ্ছে এই করোনা ভাইরাস । দীর্ঘ পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর যা নিশ্চিত করলেন চিনের চিকিৎসকরা। 

আরও পড়ুন-প্রতারণায় অভিযুক্ত আফ্রিকার ধনীতম মহিলা, জারি হচ্ছে গ্রেফতারি পরোয়ানা...

এবার এই করোনা ভাইরাসের সন্ধান মিলল ভারতীয়ের শরীরে।  সৌদি আরবে কর্মরত এক ভারতীয়র শরীরে প্রমাণ মিলল এই করোনা ভাইরাসের। সেই নিয়ে আতঙ্ক যেন আরও বেড়ে উঠেছে। তবে এখনও পর্যন্ত  একজন ছাড়া আর কারোর শরীরে এই করোনা ভাইরাসের প্রমাণ মেলেনি।  ইতিমধ্যেই করোনা নিয়ে চিনে ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। এবার ভারতীয়দের কথা ভেবে হটলাইট চালু করল চিনের ভারতীয় দূতাবাস।

 

আরও পড়ুন-পাকিস্তানে বাড়ছে বিবাহ বিচ্ছেদ, বলিউডকে দায়ী করলেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান...

আল হায়াত হাসপাতালে কর্মরত  ভারতীয় নার্সের মধ্যে একজন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত। এখন অন্য একটি ন্যাশনাল হাসপাতালে তার চিকিৎসা চলছে। এছাড়াও ইতিমধ্যেই করোনা নিয়ে বাড়তি সতর্কতা নিচ্ছে কেরল প্রশাসন। কেরলের অনেক মানুষই রয়েছে যারা মধ্যপ্রাচ্যে কাজ করেন। আর সেই কারণেই জন্যই এই সতর্কতা নেওয়া হয়েছে। বেজিংয়ে সতর্কতা জারি করা হয়েছে। ওই পাঁচ শহরে কোনও বিমান ওঠানামা করবে না। ট্রেনও ছাড়বে নায এমনকী বাসিন্দাদেরও বলা হয়েছে খুব প্রয়োজন ছাড়া শহরের বাইরে না বেরোতে। ইতিমধ্যেই অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে জানিয়েছেন, 'মনে হচ্ছে পৃথিবীর দিন শেষ'। এমনকী খাবারেরও অভাব দেখা দিয়েছে। আগামীকাল ২৫ জানুয়ারি চিনা নববর্ষ।  প্রবাসীরা এই দিনটাই বাড়ি ফিরে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটান, উৎসবে মেতে ওঠে। এবারের সেই ছবিটাও পুরো উল্টো।  নিঃশব্দেই শরীরে দানা বাঁধছে এই মারণ রোগ।  করোনা ভাইরাস যখন ধরা পড়বে তখন মৃত্যুর দোরগোড়ায় পৌঁছে যাবেন আপনি। ভয়াবহ এই মারণ রোগ আটকাতে ইতিমধ্যেই তৎপর সমস্ত দেশ।