গোটা পৃথিবীতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৪২ লক্ষের গণ্ডি ছাড়িয়ে গিয়েছে। ২০০টিরও বেশি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে মারণ সংক্রমণ। এই অবস্থায় একাধিক দেশ রয়েছে লকডাউনে। ফলে অন্তর্দেশীয় ও আন্তর্জাতিক দুই ধরণের বিমান চলাচলই গোটা বিশ্বে মাজ্ঞচ মাস থেকে প্রায় বন্ধ রয়েছে। এই পরিস্থিতিতে বিশ্বের অধিকাংশ বিমান সংস্থাই ব্যাঙ্ক দেউলিয়া হয়ে যাবে বলে আগেই আশঙ্কা প্রকাশ করেছিল অসামরিক বিমান পরিবহণ ক্ষেত্রে বিশ্বের অন্যতম উপদেষ্টা  সংস্থা কাপা। সেই আশঙ্কাই সত্যি হল। পৃথিবীর দ্বিতীয় প্রাচীন এয়ারলাইন অ্যাভিয়েঙ্কাকে ব্যাঙ্ক দেউলিয়া ঘোষণা করা হল। 

করোনাভাইরাস মহামারীর আকারে ছড়িয়ে পড়ায় মার্চের শেষ থেকেই লাতিন আমেরিকার দ্বিতীয় বৃহত্তম এয়ারলাইন্স অ্যাভিয়েঙ্কার উড়ান অনিয়মিত হয়ে পড়েছিল। পৃথিবীর অন্যতম নামকরা এই বিমান সংস্থার একের পর এক বিমান বাতিল হতে থাকে। যার জেরে মাইনে বন্ধ হয়ে যায় সংস্থার ২০ হাজার কর্মীর। শেষপর্যন্ত গত রবিবার ব্যাঙ্ক দেউলিয়া ঘোষণা করতে হয়  শতবর্ষ পুরনো কলম্বিয়ার এই বিমান সংস্থাটিকে।

লকডাউন তোলার একমাস কাটতে না কাটতেই বিপত্তি, ফের করোনার গোষ্ঠী সংক্রমণ উহানে

করোনার হদিশ পেতে জনপ্রিয়তা বাড়ছে পুল টেস্টিং-এর, জেনে নিন কীভাবে হয় এখানে নমুনা পরীক্ষা

আজ রাতে ফের মোদীর ভাষণ, এবার জনতার উদ্দেশ্যে কী বলতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী

করোনা সংক্রমণ ২০০টিরও বেশি দেশে ছড়িয়ে পড়ায় প্রতিটি এয়ারলাইন্স সংস্থারই পরিষেবা বন্ধ হওয়ার মুখে। করোনাভাইরাসের প্রভাবে একাধিক দেশের সরকার ভ্রমণের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। ভিসা বাতিলের পথে এগিয়েছে বিশ্বের নানা দেশ। যার ফলে বর্তমানে বিশ্বের বহু নামকরা উড়ান সংস্থাই ইতিমধ্যে কার্যত দেউলিয়া অবস্থায় পৌঁছে গিয়েছে। কোনো কোনও সংস্থা ঋণ নেওয়ার মাত্রা ছাড়িয়ে গিয়েছে। এই অবস্থায় চলতি মাসেই বিশ্বের আরও একাধিক উড়ান সংস্থা দেউলিয়া হয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। 

করোনার জেরে বিশ্বজুড়েই খারাপ অবস্থায় রয়েছে বিমান শিল্প। অ্যাভিয়েঙ্কার আগে ভার্জিন অস্ট্রেলিয়া, এয়ার মরিশাসের মতো অনেক বিমানসংস্থাই নিজেদের দেউলিয়া ঘোষণা করেছে । জানা যাচ্ছে এবার কর্মী ছাঁটাইয়ের পথে হাঁটতে হচ্ছে বিশ্বের এক নম্বর এয়ারলাইন্স কাতার এয়ারওয়েজকেও। এই মুহূর্তে কাতার এয়ারওয়েজের মোট কর্মী সংখ্যা ৪৬,৬৮৪ জন ৷ তাঁদের প্রত্যেককেই সিইও আল বেকার ই-মেইল করে ঠিন সিদ্ধান্তের জন্য প্রস্তুত থাকতে বলেছেন। 

করোনার মোকাবিলা করতে নেমে ভারতেও একমাসের বেশি সময় ধরে লকডাউন চলছে। ফলে বিমান সংস্থাগুলির ক্ষতি হচ্ছে বিপুল। সরকারি সাহায্য না পেলে তাদের অনেকেই দেউলিয়া হয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা।