শুক্রবার বাগদাদ বিমানবন্দরে আমেরিকার বিমান হানা। আর তাতেই মৃত্যু হল ইরানের এলিট রেভলিউশনারি গার্ড ফোর্সের প্রধান জেনারেল কাশেম সোলেমানির। শুধু সোলেমানি নয় এই হানায় মৃত্যু হয়েছে আরও আট জনের। যাদের মধ্যে রয়েছে ইরানের মদতপুষ্ট পপুলার মোবালাইজেশন ফোর্সের ডেপুটি কমান্ডার আবু মেহদি আল-মুহানদিস। 

পেন্টাগন সূত্রে এই হামলা এবং সোলেমানির মৃত্যুর খবরে সিলমোহর দেওয়া হয়েছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশেই এই হামলা চালান হয়েছে বলে মার্কিন সেনা সূত্রে জানান হয়েছে। 

আরও পড়ুন : নাগরিকত্ব আইনের পক্ষে জনসমর্থন জোটাতে ১০ দিনের কর্মসূচি, এবার টোল ফ্রি নম্বরের সূচনা করবেন শাহ

স্থানীয় সময় শুক্রবার ভোরে এই ঘটনা ঘটে। আর তারপরেই নিডের ট্যুইটার অ্যাকাউন্টে আমেরিকার একটি পতাকা পোস্ট করেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। 

ইরাকের প্রশাসন সূত্রে জানান হয়েছে, শুক্রবার ভোরে আচমকা বাগদাদ বিমানবন্দরে হামলা চালায় আমেরিকা। তিনটে রকেট ছোঁড়া হয়। তাতেই মৃত্যু হয় ইরানের এলিট গার্ড ফোর্সের প্রধান কমান্ডার কাশেম সোলেমানি, পিএমএফ-এর ডেপুটি কমান্ডার আবু মেহদি আল-মুহানদিস ও বিমানবন্দরের প্রোটোকল অফিসার মহম্মদ রেদা সহ আটজনের। 

আরও পড়ুন: বৃষ্টি চলছে কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে, সকাল থেকেই শুনসান তিলোত্তমার রাজপথ

ইরাকের আধাসামরিক বাহিনীর সূত্র জানা গেছে, ইরান থেকে কিছু শীর্ষস্থানীয় আধিকারিকের এদিন ইরাকে আসার কথা ছিল। সেই কারণেই বাগদাদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে গিয়েছিলেন প্রোটেকল অফিসার রেজা। সুলেমানি ও মুহানদিসকে নিয়ে বিমানবন্দর থেকে তিন বেরহওয়ার সময় কার্গো হলের কাছে তিনটি রকেট এসে পড়ে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত সকলেরই এই হামলায় মৃত্যু হয়।