কিয়াম্পিসি মসজিদে তাঁর দেখা পেয়েছিলেন মহম্মদ মুতুম্বা। হিজাবের আড়ালে মুখ থাকলেও কথা বলেই সেই 'রূপসী'র প্রেমে পড়ে গিয়েছিলেন উগান্ডার এই ইমাম। শে, পর্যন্ত তাঁদের বিয়েও হয়। কিন্তু মুতুম্বা-র এই রূপকথার মতো স্বপ্নটা ভেঙে গেল এর দুই সপ্তাহ পরই। প্রতিবেশীর বাড়িতে চুরি করার অভিযোগ উঠল তাঁর সদ্য বিবাহিত স্ত্রী-এর বিরুদ্ধে। আর থানায় গিয়ে ইমাম সাহেব জানতে পারলেন তাঁর স্ত্রী আসলে একজন পুরুষ।

দুই সপ্তাহ আগে এক ঐতিহ্যবাহী অনুষ্ঠানে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন মুতুম্বা ও তাঁর স্ত্রী। প্রেমপর্বে আদর-টাদর করতে দেয়নি তাঁর প্রেয়সী। বলেছিল বাবার কাছে কন্যাপণ দিয়ে বিয়ে করলে তবেই কাছে ঘেসতে দেবে। কিন্তু ইমাম জানিয়েছেন বিয়ের রাতে কাছে আসতে গেলে তাঁর 'স্ত্রী' জানিয়েছিল তাঁর পিরিয়ডস হয়েছে, তাই 'এখন না'। কবে স্ত্রীর পিরিয়ডস পর্ব কাটে তার জন্য ধৈর্য ধরে অপেক্ষা করেন মুতুম্বা। কিন্তু, তাঁর সেই অপেক্ষা আর শেষ হল না।

বিয়ের সেই শুভদিনে ইমাম মহম্মদ মুতুম্বা ও তাঁর 'স্ত্রী'

আরও পড়ুন - প্রেম হারানোর দুঃখে চললেন সোজা চাঁদে, নতুন সঙ্গিনী খুঁজছেন কোটিপতি

সবচেয়ে খারাপ বিষয় তাঁর স্ত্রী যে পুরুষ তা আবিষ্কার করেন তাঁর এক প্রতিবেশী। সেই প্রতিবেশী ইমাম মহম্মদ মুতুম্বার কাঠে অভিযোগ করেন, ইমাম সাহেবের 'স্ত্রী'-কে তিনি পাঁচিল টপকে তাঁদের বাড়ি থেকে টিভি ও জামাকাপড় চুরি করতে দেখেছেন। তাঁদের ধারণা তাঁর স্ত্রী একজন পুরুষ। ইমাম মানতে না চাওয়ায় বিষয়টি থানায় গড়ায়।

আরও পড়ুন - সমুদ্র সৈকতে কি ভেসে এল হাজার হাজার পুরষাঙ্গ, সোশ্যাল মিডিয়ায় শোরগোল

মুতুম্বার 'স্ত্রী' বোরখায় মুখ ঢেকে থানায় পায়ে মহিলাদের চটি পরেই থানায় আসেন। কিন্তু এক মহিলা পুলিশ আধিকারিক তাঁকে লকআপে ঢুকিয়ে বিশদে পরীক্ষা করে। আর তাতেই সব রহস্য ফাঁস হয়। জানা গিয়েছে মহিলা পুলিশ অফিসার দেখেন তাঁর অন্তর্বাসের মধ্যে কাপড়চোপড় গুঁজে সে নারীদেহের রূপ নিতে চেয়েছিল। এরপর ওই কর্তা তাঁর দেহে পুরুষ যৌনাঙ্গেরও সন্ধান পান।

আরও পড়ুন - স্বামী দাঁত মাজেন না, চান করেন না, বিচ্ছেদ চাইলেন স্ত্রী

এরপরই জেরার মুখে ইমাম সাহেবের স্ত্রী স্বীকার করে নেন তিনি একজন পুরুষ। অর্থের লোভে তিনি ইমাম মহম্মদ মুতুম্বা-কে প্রতারিত করে বিবাহ করেছেন। পুলিশ বলার পরও ইমাম অনেকক্ষণ এই কথা বিশ্বাস করেননি। পরে অবশ্য পুরোটা বুঝে খুব ভেঙে পড়েছেন বলে জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন - ছেড়ে গিয়েছিলেন অজানা শহরের রেলের কামড়ায়, ৩৮ বছর পর মা-এর মামলা ছেলের