শাজাহান আলি, ঝাড়গ্রাম-করোনা আক্রান্ত রোগীর মৃত্যু ঘিরে তুমুল উত্তেজনা ছড়াল ঝাড়গ্রাম সুপার স্পেশালটি হাসপাতালে। রোগীর আত্মীয়দের বিক্ষোভের জেরে শিকেয় ওঠে হাসপাতাল পরিষেবা। অন্যদিকে, বেহাল স্বাস্থ্য পরিষেবার প্রতিবাদে ঝাড়গ্রামে রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখায় সিপিএম। ঘটনার জেরে তীব্র রাজনৈতিক চাপানউতোর শুরু হয় ঝাড়গ্রাম জুড়ে। দিনভর বিক্ষোভের জেরে অতিষ্ঠ ডাক্তাররা। প্রতিবাদে তাঁরাও হাসপাতাল চত্বরে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করেন।

আরও পড়ুন-সহজলভ্য বস্তু দিয়ে বিস্ফোরক-জ্যাকেট তৈরি, সেনার উপর হামলার ছক ছিল ধৃত আল কায়দা জঙ্গিদের

জাানগেছে, জ্বর উপসর্গ নিয়ে ঝাড়গ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলে উত্তরবান্দার বাসিন্দা এক যুবক। প্রাথমিক চিকিৎসার পর তাঁকে কোভিড হাসপাতালে পাঠানো হয়। শুক্রবার রাতে কোভিড হাসপাতালে মৃত্যু হয় ওই যুবকের। ঘটনায় চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগ তুলে হাসপাতালে দফায় দফায় বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন রোগীর আত্মীয়রা। অন্যদিকে, বেহাল স্বাস্থ্য ব্যবস্থার প্রতিবাদে রাস্তা অবরোধ করে সিপিএমও। হাসপাতালে জড়ো হয় তৃণমূলের লোকজন। সেখানে তৃণমূল নেতা এক চিকিৎসককে হেনস্থা করা হয় বলে অভিযোগ। প্রতিবাদে হাসপাতালে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করে জাক্তাররাও। সব মিলিয়ে দিনভর উত্তেজনার জেরে শিকেয় উঠল হাসপাতালের চিরিৎসা পরিষেবা।

আরও পড়ুন-'মাস্ক পরেননি কেন', হাসপাতালরক্ষীর 'মারে' মাথা ফাটল রোগীর আত্মীয়র

শনিবার বেলা দুটো থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত অবস্থান বিক্ষোভ করেন চিকিৎসকরা। পরে ঝাড়গ্রামের প্রাক্তন সাংসদ তথা তৃণমূল নেত্রী উমা সোরেন অবস্থানরত চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেন। এরপরই অবস্থান বিক্ষোভ তুলে নেন চিকিৎসকরা। দিনভর উত্তেজনা থাকার পর রাত ৯টার পর হাসপাতালের চিকৎসা পরিষেবা স্বাভাবিক হয়।