গণপিটুনি এবং সংখ্যালঘু- দলিতদের উপরে অত্যাচার বন্ধের দাবিতে প্রধানমন্ত্রীকে লেখা চিঠিতে অন্যান্য বিশিষ্টজনদের সঙ্গে সই করেছিলেন। এবার প্রাথমিক শিক্ষকদের আন্দোলন নিয়ে রাজ্য সরকারকে তীব্র আক্রমণ করলেন অভিনেত্রী এবং পরিচালক অপর্ণা সেন। ক্লাবকে অনুদান, উৎসব বন্ধ করে শিক্ষকদের বেতন বাড়ানোর জন্য রাজ্য সরকারের উদ্দেশে বার্তা দিলেন তিনি। যদিও এ দিনই রাজ্যের তরফে প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধির ঘোষণা করা হয়েছে। 

এ দিন সন্ধ্যায় সল্টলেকে প্রাথমিক শিক্ষকদের অনশন মঞ্চে যান অপর্ণা সেন। সেখানে গিয়ে আন্দোলনকারী শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। এর পরেই সরকারের তীব্র সমালোচনা করে বিশিষ্ট এই সিনেমা ব্যক্তিত্ব বলেন, 'চোদ্দ দিন ধরে আপনারা দেখছেন না কী হচ্ছে! কেন শিক্ষকদের তাঁদের য়োগ্য বেতন দেওয়া হবে না? শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও তাঁরা আজ যথাযথ বেতন পাচ্ছেন না। কীভাবে এঁদের সংসার চলে কেউ খবর রাখেন? শিক্ষামন্ত্রী, মুখ্যমন্ত্রীকে অনুরোধ করছি ক্লাবে অনুদান দেওয়া, উৎসব করা বন্ধ করুন। বাঙালি হিসেবে আমার লজ্জা করছে।'

আরও পড়ুন- চাপের মুখে নতিস্বীকার, প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধি করল রাজ্য সরকার

অপর্ণা সেন রাজ্য সরকারকে এ ভাবে আক্রমণ করার কিছুক্ষণের মধ্যেই রাজ্য সরকারের তরফে শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধির নির্দেশিকা জারি করা হয়। যদিও সেই সিদ্ধান্ত এ দিন সকালেই নেওয়া হয়েছিল। এর পর অনশন তুলে নেন প্রাথমিক শিক্ষকরাও। 

গণপিটুনির প্রতিবাদে অপর্ণা সেন-সহ বিশিষ্টদের প্রধানমন্ত্রীকে লেখা চিঠির পাল্টা হিসেবে এ দিন আরও একটি  চিঠি নরেন্দ্র মোদীকে লেখেন বিশিষ্টরা। সেই চিঠিতে সই করেন প্রসূন যোশী, কঙ্গনা রানাওয়াতের মতো বিভিন্ন ক্ষেত্রের বিশিষ্টরা। সেখানে প্রথম চিঠি লেখার জন্য অপর্ণা সেনদের বিরুদ্ধে কার্যত পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ তোলা হয়। প্রশ্ন তোলা হয়, পশ্চিমবঙ্গে হিংসার ঘটনায় কেন চুপ থাকেন অপর্ণারা?

নরেন্দ্র মোদীকে গণপিটুনি নিয়ে অভিযোগ জানানোর পরেই এবার রাজ্য সরকারের সমালোচনাতেও সরব হলেন অপর্ণা সেন। এ দিন তিনি একাই গিয়েছিলেন প্রাথমিক শিক্ষকদের অনশন মঞ্চে। এর আগে জুনিয়র চিকিৎসকদের আন্দোলনের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন তিনি। কাঁকিনাড়ায় গন্ডগোলের সময়েও এলাকায় গিয়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে দেখা করেছিলেন তিনি।