করোনাভাইরাসের আবহে রাজ্যে স্বাস্থ্য বীমায় বড়সড় পরিবর্তন ঘটালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়। আগামী বিধানসভা ভোটকে পাখির চোখ করে স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পের সম্প্রসারন করলেন মমতা। রাজ্যের সব নাগরিককে এই প্রকল্পের আওতায় আনা হচ্ছে বলে ঘোষণা করলেন মমতা। পাশাপাশি, স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পের কার্ড বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার কাজ দ্রুত করবেন রাজ্যের স্বাস্থ্যকর্মীরা।

আরও পড়ুন-বামদের বনধের প্রভাব পড়ল রাজ্য়ে, কয়েকটি বিক্ষিপ্ত অশান্তি ছাড়া ধর্মঘট শান্তিপূর্ণ

বৃহস্পতিবার নবান্ন থেকে সরাসরি এই প্রকল্পের ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়। স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পের আওতাভুক্ত রাজ্যের সকল নাগরিকদের জন্য বার্ষিক ৫ লক্ষ টাকা স্বাস্থ্য বিমা ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে এই পরিষেবা চালু হবে বলে নবান্ন থেকে ঘোষণা করেছেন মমতা। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, এই প্রকল্পের কাজ সম্প্রসারনেজ জন্য স্বাস্থ্য়কর্মীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ করবেন। নাম, ঠিকানা, পরিবারের সদস্য সংখ্যা ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ করে নিয়ে যাবেন। সেই তথ্যের ভিত্তিকে স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পের কাজ পাবেন উপভোক্তারা। নতুন কার্ড ব্লকে ব্লকে পৌঁছানোর পর ডাক পেলে নির্দিষ্ট অফিসে গিয়ে সেগুলি সংগ্রহ করতে হবে উপভোক্তাদের।

আরও পড়ুন-বনধ ঘিরে বাম-কংগ্রেসকর্মীদের উপর পুলিশের লাঠি, রণক্ষেত্রের চেহারা নিল বারাসত

করোনাভাইরাসের আবহে সরকারি স্বাস্থ্য বিমা নিয়ে এত বড় ঘোষণা এখনও কোনও রাজ্য করেনি। মুখ্যমন্ত্রীর স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পকে নির্দিষ্ট জায়গায় থামিয়ে না রেখে আরও তার বিস্তার ঘটাতে চান বলে এদিন নবান্ন থেকে জানিয়েছেন তিনি। এখনও পর্যন্ত রাজ্যে স্বাস্থ্যসাথীর আওতাভুক্ত উপভোক্তার সংখ্যা রয়েছে রাজ্যের সাত কোটি নাগরিক। এবার থেকে এই প্রকল্পের আওতায় পরিবারের সবাই বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়। নবান্ন থেকে মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ''এবার থেকে রাজ্যের কোনও পরিবার স্বাস্থ্য বিমার আওতায় থাকবেন না। বর্তমানে সাত কোটি মানুষ রয়েছেন, আরও আড়াই কোটি বাড়ানো হবে''। অর্থাৎ পশ্চিমবঙ্গের ১০ কোটি মানুষ স্বাস্থ্যবীমার আওতায় চলে আসছে বলে জানান মমতা।