হাওয়া অফিসের বলার অপেক্ষা রইল না। আজ থেকে মৌসম ভবন কিছু বলুক না বলুক,রাজ্য়ে বইবে 'খোলা হাওয়া'। দুপুর একটায় যার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন গেরুয়া পন্থীরা।

রাজ্যে একের পর এক ঘটনায় নিজস্বতা হারাচ্ছে রাজ্যবাসী। যাদবপুরে মন্ত্রী হেনস্থাকাণ্ডেও বাবুল সুপ্রিয়কেই কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন বামঘেঁষা বুদ্ধিজীবীরা। এমনকী প্রতিটা ঘটনায় মন্তব্য করতে গিয়ে নিরপেক্ষতা হারাচ্ছেন বিদ্বজ্জনরা। রাজ্যের সাম্প্রতিক অতীত বলছে, এখন তৃণমূলপন্থী, বামপন্থী এমনকী গেরুয়াপন্থী তকমা লেগে গেছে সচেতন মানষের গায়ে। বিজেপির দাবি, রাজ্যবাসীকে খোলা মনে মন্তব্য করার স্বাধীনতা দিচ্ছে না শাসক দল। সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে 'খোলা হাওয়া' পথ দেখাবে তাঁদের। বৃহস্পতিবার আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন হবে খোলা হাওয়া মঞ্চের। উপস্থিত থাকবেন কেন্দ্রীয় বন ও পরিবেশ প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। রাজ্যসভার সাংসদ স্বপন দাশগুপ্ত,লেখক রন্তিদেব সেনগুপ্ত । 

সদ্য বিজেপিতে যোগ দেওয়া টলি সেলেবদেরও দেখা যাবে প্রেস ক্লাবের এই উদ্বোধন মঞ্চে। সাংসদ লকেট চ্যাটার্জির পাশাপাশি সেখানে উপস্থিত থাকবেন রিমি সেন, রূপা গাঙ্গুলি, পার্নো মিত্র, অঞ্জনা বসু , অগ্নিমিত্রা পল ছাড়াও বিশিষ্টজনেরা। দলের তরফে জানানো হয়েছে, রাজ্যের শিক্ষা,সাংস্কৃতি ও সৃজনশীল ক্ষেত্রে একটা দমবন্ধ পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে। কোথাও মনের কথা বললেই তাঁকে একঘরে করে দেওয়া হচ্ছে। এই দমবন্ধ পরিবেশ থেকেই মুক্তি দেবে-খোলা হাওয়া। যদিও রাজ্য রাজনৈতিক মহলের ধারণা, বিজেপির তত্ত্বাবধানে তৈরি হয়েছে বলে প্রথম থেকেই এই মঞ্চের গায়ে লেগেছে রাজনৈতিক তকমা । তাই গেরুয়াপন্থীরাই যে এই ব্রিগেডে যোগ দেবে সেটাই স্বাভাবিক। মূলত,টলিউড ছাড়াও রাজ্যের কবি সাহিত্য়িক মহল ও শিক্ষাবিদদের পাশে পেতেই এই মঞ্চের সূচনা হতে চলেছে।