বিজেপির কেন্দ্রীয় পদাধিকারীদের নতুন তালিকায় নাম না থাকায় রেগে অগ্নিশর্মা রাহুল সিনহা। প্রকাশ্য়েই ভিডিয়ো প্রকাশ করে এ নিয়ে ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন তিনি। এমনকী তাঁর বার্তায় দল ছাড়ার ইঙ্গিতও দিয়েছেন বিজেপির প্রাক্তন কেন্দ্রীয় সম্পাদক। ঠিক কী বলেছেন রাহুল সিনহা।

বঙ্গ বিজেপির এই নেতা বলেছেন,গত ৪০ বছর ধরে তিনি বিজেপি  করে আসছেন। রাজ্য়ে গেরুয়া ব্রিগেডের জন্মলগ্ন থেকে দলের সঙ্গে রয়েছেন তিনি। অথচ তাঁর কেন্দ্রীয় সম্পাদকের জায়গায় আনা হল একজন তৃণমূলের লোককে। যা মেনে নিতে পারছেন না তিনি। আগামী ১০-১২ দিনের মধ্য়েই নিজের রাজনৈতিক ভবিষ্যতের সিদ্ধান্ত নেবেন তিনি।

সংঘাত এড়াতে সংসারের বার্তা, অক্টোবরে দিলীপ-মুকুলদের নিয়ে বৈঠকে বসছেন অমিত শাহ
এদিকে রাহুলের এই মন্তব্য়ের পরই বিজেপিতে জোর গুঞ্জন। তবে কি দলে ছেড়ে দেবেন রাহুল সিনহা। ২০২১-এর বিধানসভা নির্বাচনের আগে রাহুলকে চটাতে চাইছে না গেরুয়া শিবিরও। শনিবার বিজেপির কেন্দ্রীয় পদাধিকারীদের নতুন তালিকা প্রকাশিত হয়েছে। তাতে নাম নেই রাহুল সিনহার। অতীতে দলের কেন্দ্রীয় সম্পাদকের পদে ছিলেন তিনি। তাঁর জায়গায় এসেছেন অনুপম হাজরা। তৃণমূলের লোকজন কেন তাঁর জায়গা নেবে তা নিয়েই ক্ষোভ রাহুল সিনহার।এই খবর সামনে আসতেই মুখ খুলেছেন অনুপম হাজরা। তিনি জানান, রাহুল সিনহার সঙ্গে তাঁর ব্যক্তিগত সম্পর্ক খুব ভালো। এই বিষয়ে কোনও রাজনৈতিক মন্তব্য করবেন না তিনি। 

মুকুলকে বড় দায়িত্ব দিতেই প্রভাব পড়তে পারে দিলীপ ব্রিগেডে। পরিস্থিতি উপলব্ধি করে শীঘ্রই দুজনকে নিয়ে বৈঠকে বসতে চলেছেন বিজেপির 'সেকেন্ড ইন্ড কমান্ড' অমিত শাহ।  সূত্রের খবর, অক্টোবরের দ্বিতীয় সপ্তাহে হতে পারে রাজ্য় রাজনীতির এই গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক। জানা গিয়েছে, কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের তরফে বঙ্গ বিজেপি-র দায়িত্বপ্রাপ্ত তিন নেতা শিবপ্রকাশ, কৈলাস বিজয়বর্গীয়, অরবিন্দ মেনন এবং বঙ্গ বিজেপি-র চার শীর্ষনেতা দিলীপ ঘোষ, সুব্রত চট্টোপাধ্যায়, মুকুল রায় ও রাহুল সিনহা বৈঠকে থাকবেন।

১ অক্টোবর থেকে খুলছে রাজ্যের সিনেমা হল, টুইট করে জানালেন মুখ্যমন্ত্রী

সামনেই একুশের বিধানসভা ভোট। তার আগে দক্ষ সংগঠককে হিসেবে পরিচিত মুকুল রায়কে সর্বভারতীয় স্তরে গুরুত্ব দিল ভারতীয় জনতা পার্টি। সর্বভারতীয় সহ-সভাপতির পদে মুকুল রায়ের নাম ঘোষণা করেন দলের সভাপতি জে পি নাড্ডা।

সর্বভারতীয় সহ সভাপতির পদ পেয়ে মুকুল রায় বলেন, ''আমাকে সর্বভারতীয় স্তরে সহ-সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। ধন্যবাদ জানাই, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে। ধন্যবাদ জানাই, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে। আমার উপর যে আস্থা রেখে গুরুত্ব দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, আমি চেষ্টা করব সেই দায়িত্ব পালন করার। আগামী বিধানসভা নির্বাচনে রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের সঙ্গে কাজ করে সবাই মিলে চেষ্টা করব পশ্চিমবঙ্গে বিজেপিকে ক্ষমতায় আনা''।

আগে কলকাতা পুলিশের কর্তাকে বাঁচাতে নিজেই হাজির হতেন, মুখ্যমন্ত্রীকে খোঁচা রাজ্য়পালের