'হয়তো ওর প্রধানমন্ত্রীর হওয়ার ইচ্ছে আছে। তাই বাংলাকে আলাদা দেশ দেখানোর চক্রান্ত চলছে।' দলের সাংগঠনিক বৈঠকে ফের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিশানা করলেন বিজেপি-র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সুর চড়ালেন শাহিনবাগ ও পার্কসার্কাসের বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধেও। এ রাজ্যে গেরুয়াশিবিরের প্রধান সেনাপতির বার্তা, 'সাধারণ মানুষ, এমনকী বিরোধী দলের নেতারাও বিশ্বাস করেন, বাংলা থেকে এই স্বৈরাচারী সরকারকে উৎখাত করতে পারে একমাত্র বিজেপিই।'

লোকসভা নির্বাচনে এ রাজ্যে বিজেপি-র সাফল্যে চমকে গিয়েছিলেন অনেকেই। কিন্তু সেই সাফল্য ধরে রাখা যায়নি বিধানসভা উপনির্বাচনে। তিনটি আসনেই জিতেছেন তৃণমূল প্রার্থীরা। এমনকী, গত বিধানসভা ভোটে যে কেন্দ্র থেকে বিধায়ক নির্বাচিত হয়েছিলেন খোদ বিজেপি-র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, সেই খড়গপুরেও ফুটেছে ঘাসফুল। আগামী বছর বিধানসভা, তার আগে পুরভোটকে এখন পাখির চোখ করেছে গেরুয়াশিবির। 

দলের বিধায়ক, সাংসদ ও রাজ্যস্তরের পদাধিকারীদের নিয়ে বিজেপি সাংগঠনিক বৈঠক শুরু হয়েছে কলকাতার একটি সভাঘরে। সেই বৈঠকে দিলীপ ঘোষ বলেন, 'আমি দিল্লিকে বারবার বলি, বাংলার নিরাপত্তা শুধু বাংলার জন্য নয়, সারা দেশের জন্য প্রয়োজনীয়। প্রতিটি জেলায় বেআইনি অস্ত্র কারখানার হদিশ মিলছে, বাংলাদেশিরা ঢুকে বসে আছে। আর এই সরকার তাদের বের করে শাস্তি দেওয়ার বদলে আড়াল করছে।' তাঁর কটাক্ষ, 'যাঁরা সবচেয়ে বেশি সুরক্ষিত, তাঁরাই সুরক্ষার কথা বলছেন। গণতন্ত্রে সব সুবিধা ভোগ করে বলা হচ্ছে গণতন্ত্র নেই। এসব নাটকই এখন আমাদের দেখতে হচ্ছে। বোরখা পরা অশিক্ষিত, অসচেতন গরিবরাই পার্ক সার্কাসে, শাহিনবাগে আন্দোলন করছে।'

আরও পড়ুন: কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে সভার অনুমতি নেই ঐশীর, কলেজস্ট্রিটে বিক্ষোভ বামেদের

উল্লেখ্য, দিল্লির শাহিনবাগের মতো কলকাতা পার্কাসার্কাসে নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে অবস্থান বিক্ষোভে বসেছেন কয়েকশো মহিলা। শুক্রবার পার্কসার্কাসে গিয়ে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে দেখা করেন জেএনইউ-র ছাত্রনেত্রী ঐশী ঘোষ। এর আগে সিএএ নিয়ে দলের কর্মী প্রশিক্ষণ দিতে এসে পার্কসার্কাসে দিয়েছিলেন প্রবীণ কংগ্রেস নেতা ও প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরমও। বিক্ষোভকারীদের পাশে দাঁড়িয়েছেন সমাজকর্মী মেধা পাটকর ও অভিনেত্রী স্বরা ভাস্করও।