মানুষের থেকে এবার পশুদের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়ল সংক্রমণ। চিড়িয়াখানায় বাঘের দেহেও পাওয়া গেল করোনা পজিটিভ। কোথা থেকে বাঘের গায়ে এল এই ভাইরাস তা নিয়ে চিন্তায় বিশ্ব। এই খবর প্রকাশ হতেই নড়েচড়ে বসেছে কেন্দ্রীয় সরকার। দেশের সবকটি রাজ্য়কে চিড়িয়াখানা নিয়ে আলাদা পরামর্শ পাঠিয়েছে কেন্দ্র। সেখানে বার্তা পাঠানো হয়েছে নবান্নেও।

রাজ্য়ে করোনায় মৃত কারা, ৩৪টি পরীক্ষার ফল দেখে সিদ্ধান্ত.

মূল ঘটনার সূত্রপাত, নিউইয়র্কের একটি চিডি়য়াখানা নিয়ে। জানা গিয়েছে এই শহরের ব্রোমক্স চিড়িয়াখানায় করোনা সংক্রমণের শিকার হয়েছে ৪ বছরের একটি বাঘ। মানুষের শরীর থেকেই ভাইরাস বাঘের শরীরে প্রবেশ করেছে বলে মনে করছেন চিড়িয়াখানার পর্যবেক্ষকরা। চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে নাদিয়া, তার বোন আজুল, ও আরোও দুটি বাঘ এবং তিনটি আফ্রিকান সিংহের শরীরে শুকনো কফ রয়েছে। সম্প্রতি ফুসফুসে সমস্যার কারণে চিড়িয়াখানার বেশ কিছু সিংহ ও বাঘকে কোভিড-১৯ টেস্ট করানো হয়। সেখানেই নাদিয়ার শরীরে করোনা ধরা পড়ে। এমনই তথ্যই দিচ্ছে  যুক্তরাষ্ট্রের এগ্রিকালচারস ন্যাশনাল ভেটেনারি ল্যাবরেটরিজ।

রাজ্য়ে মৃত্যু থেমে তিনে,করোনায় আক্রান্ত ৬১..

এই খবর প্রকাশ্য়ে আসতেই কেন্দ্রীয় সরকার সমস্ত রাজ্যগুলিকে অ্যাডভাইজারি পাঠিয়েছে। নবান্নের এই পরামর্শ বার্তায় বলা হয়েছে, অবিলম্বে রাজ্য়ের চিড়িয়াখানা ও পশুপাখির দিকে নজর দেওয়াা হোক। যদিও রাজ্যের বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন,  কেন্দ্রের এই পরামর্শ পাওয়ার অনেক আগে থেকেই রাজ্য সরকার সমস্ত রকম বাঘ এবং অন্যান্য পশু পাখি যাতে সুরক্ষিত থাকে তার সমস্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

রাজ্য়ে করোনায় মরছেন কারা,ঠিক করবে পাঁচজনের বিশেষজ্ঞ কমিটি.

গত ফেব্রুয়ারি মাস থেকেই সমস্ত পশুপাখিদের অ্যান্টিভাইরাস দেওয়া শুরু হয়েছে। পশু-পাখিদের কোভিড ১৯ থেকে সুরক্ষিত করতে গত ১৭ মার্চ থেকে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে চিড়িয়াখানা।  এমনকী চিড়িয়াখানার পশুপাখিদেরকে যারা খাবার বিতরণ করবে তাদেরও পিপিই পরে খাবার দেওয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।