নরেন্দ্র মোদীর পর এবার অমিত শাহকেও কালো পতাকা দেখাবে সিপিএম। ১ মার্চ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কলকাতায় পা রাখার আগেই তার পরিকল্পনা করছে বামেরা। খোদ এই কালো পতাকা দেখানোর বিষয়ে জানিয়েছেন সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তী। বাম নেতার  দাবি, দিল্লির হিংসায় যাদের হাত রয়েছে, কলকাতার মাটিতে তাদের বিরোধিতা হবেই।

শিবের দয়া, নিমগাছ থেকে বের হচ্ছে 'দুধ', গ্রামজুড়ে শোরগোল

১ মার্চ  কলকাতায় আসছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। শহিদ মিনারে সিএএ-র সমর্থনে সভা করবেন তিনি। অন্যান্য বারের বিজেপির প্রাক্তন সর্বভারতীয় সভাপতির সভা নিয়ে আপত্তি করেনি কলকাতা পুলিশ। শহিদ মিনার  ইস্টার্ন কমান্ডের আওতায় পড়ায় পাওয়া গিয়েছে আর্মির  ছাড়পত্র। কিন্তু শহিদ মিনারে অমিত শাহের এই সংবর্ধনা সভা নিয়েই আপত্তি তুলেছে বামেরা। 

বাম নেতা সুজন চক্রবর্তীর  প্রশ্ন,দেশজুড়ে সিএএ-র প্রবল বিরোধিতা চলছে, তখন  কী করে শাহের সংবর্ধনা-সভার অনুমোদন দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সুজনবাবুর দাবি, এই ঘটনাই প্রমাণ করে মোদী-দিদি যোগসাজশ রয়েছে। সেকারণেই এরকম একটা পরিস্থিতিতে শাহকে শহিদ মিনারে সভা করার অনুমতি দেওয়া হল। মমতাকে খোঁচা দিয়ে এই বাম নেতা বলেন,দেশবাসীর শান্তি কামনায় নয়, অমিত শাহকে পুজো দিতে চাইছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

ছাত্রীর শ্লীলতাহানিতে অভিযুক্ত অধ্যাপকে ছুটি, আন্দোলনকে বেআইনি বললেন উপাচার্য

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের  সঙ্গে যোগ দিতে পারেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জগৎপ্রসাদ নাড্ডা। কলকাতায় শহিদ মিনারের সভায় এক লাখের জমায়েতের সম্ভাবনা দেখছেন বিজেপির রাজ্য়  সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তবে সভাপতি জাানিয়েছেন, কেবল কলকাতা ও আশপাশের এলাকার লোকেরাই এই সভায় অংশ নিতে আসবেন। রাাজ্য় স্তরের সবাইকে নিয়ে এই মিটিং হচ্ছে না। 

সিএএ-এর সমর্থনে এর আগে অক্টোবরের ১ তারিখ নেতাজি ইনডোর স্টেডিয়ামে সভা করেছিলেন অমিত শাহ। সম্প্রতি কলকাতায় এসে সিএএ নিয়ে মুখ খুলেছিলেন প্রধানমন্ত্রী  নরেন্দ্র মোদী। দেশে সিএএ নিয়ে যতই বিক্ষোভ হোক না কেন, তিনি যে পিছু হটছেন না তা  আগেই জানিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। এবার তাঁর পথে হেঁটেই সিএএ নিয়ে শহিদ মিনারে সভা করবেন অমিত  শাহ।

মায়ের উদ্দাম জীবনযাপন গ্রাস করেছিল মেয়েকে,রিয়াও ছিল রমার মতো

অতীতে কলকাতায় সিএএ বিরোধিতায় প্রধানমন্ত্রীর কনভয়কে কালো পতাকা দেখানোকে কেন্দ্র করে উত্তাল চেহারা নেয় রাজপথ। পুলিশের সঙ্গে খণ্ডযুদ্ধ বেঁধে যায় বাম ছাত্রছাত্রীদের।