একবালপুর তরুণী উদ্ধার কাণ্ডে উঠে এল একাধিক নয়া তথ্য। বছর কুড়ির নয়না একদিকে যেমন ছিল সুন্দরী, অপরদিকে ছিল বেপরোয়া। গভীররাতেও মা হারানো মেয়েটাকে স্কুটি নিয়ে ঘুরে বেরাতে দেখা যেত ময়দান তথা ভবানিপুরের বিস্তৃর্ণ অঞ্চলে। অভিযোগ, নয়না মাদকচক্রের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছিলেন। তবে কীসের টানে তিনি এই অন্ধকার জগতে পা বাড়িয়েছিলেন, নাকি এই ফাঁদে পড়েই তাঁকে প্রাণ হারাতে হল।
 

আরও পড়ুন, মদ খেতে বাধা দেওয়ায় অন্তসত্বা স্ত্রীকে মেরে ঝুলিয়ে দিল স্বামী, তীব্র চাঞ্চল্য হরিদেবপুরে

 

আরও পড়ুন, 'কাকে ধরেছেন, ইউটিউব খুলে দেখুন', জীবনতলায় পুলিশকে শাসানি হুগলির বিশালের


নয়নার পকেট থেকে মাদক পাওয়া গিয়েছিল

প্রসঙ্গত,  একবালপুরে এমএম আলী রোডে সিমেন্টের বস্তা থেকে নয়নার দেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সূত্রে খবর, বছর কুড়ির নয়নার শরীরে আঘাতের চিহ্ন পেয়েছে পুলিশ। ইতিমধ্য়েই  এলাকায়  তদন্তে এসেছে লালবাজার হোমিসাইড শাখা এবং সঙ্গে এসেছে  স্নিফার ডগ। এখনও এলাকায় ব্যপক উত্তেজনা।  যেখানে দেহ পড়েছিল, সেই অংশটা ঘিরে রেখেছে পুলিশ।  ওই তরুণীর দেহ ময়না তদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। লালবাজার ও একবালপুর থানার পুলিশ ইতিমধ্যেই এলাকার লোককে জিজ্ঞাসাবাদ চালাচ্ছে। কীকরে এত মর্মান্তিক ঘটনা ঘটল সদ্য ২০ বছরে পা দেওয়া নয়না সঙ্গে, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে সবচেয়ে অবাক করা তথ্য, বুধবার যখন তাঁর দেহ পাওয়া যায়, তখন মৃত নয়নার পকেট থেকে মাদক পাওয়া গিয়েছিল বলে অভিযোগ।

 

 

 

আরও পড়ুন, 'মালদা বিস্ফোরণে বোমার যোগাযোগ নেই', রাজ্যপাল-বিজেপিকে পাল্টা জবাব নবান্নের


খুব ছোট বেলায় মাকে হারিয়েছে সুনয়না

আরও জানা গিয়েছে, অধীক রাতে নয়নার স্কুটিতে বন্ধু সোনম ও তাঁর মাকেও দেখতে পাওয়া যেত। সোনমের মার অভিযোগ, নয়না মাঝে-মধ্যেই মদ্য পান করতেন এবং অন্যান্য মাদকও নিতেন। তবে নয়নার বিরুদ্ধে ওঠা মাদক বিক্রির অভিযোগ সত্যি নয় বলেন সোনমের মা রেশমা। এদিকে বছর কুড়ির নয়না সদ্যই রিহ্যাব থেকে ফিরে এসেছিল। খুব ছোট বেলায় মাকে হারিয়েছে সুনয়না। মাকে না পেয়েই কী এত অভিমান-নিজের প্রতি রাগ নয়নার, তা এখনও পুরো জানা যায়নি। তবে অন্যায়ের প্রতিবাদ সবদিন করত নয়। কেউ কটুক্তি করলেও স্কুটি থেকে নেমে মারপিট শুরু করে দিত। তবে এখানে আরও একটা প্রশ্ন উঠেছে তাঁর মৃত্যুর পিছনে মাদকচক্র নাকি অন্যায়ের প্রতিবাদ করা , কোনটা নয়নার জন্য কাল হল, খতিয়ে দেখছে লালবাজার শাখা।