সুব্রতকে সরিয়ে অমিতাভকে আনতে আগুনে ঘি পড়ল রাজ্য বিজেপিতে। রাতারাতি সোশ্যাল পোস্টে চড়ল পারদ। 'বর্গি দেশের এক উজির পশ্চিমবঙ্গে বারবার আঘাত হানছে। ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে কিছু বর্গি-পেয়াদা।' লেখক রাজ্য বিজেপির দিলীপ ঘোষের ব্যক্তিগত সহায়ক। এই  সোশ্যাল পোস্ট ঘিরে তোলপাড় রাজ্য বিজেপি। আর এরপরেই পোস্টটি তুলে নেওয়া হলেও তার প্রভাব এখনও কমেনি।

আরও পড়ুন, বাংলায় সুস্থতার হার সামান্য বেড়েছে, তবে এখনও করোনায় মৃত্যু থামেনি কলকাতায়

 

'সরানোর অর্থ আসলে দিলীপের ডানা ছাঁটা'

বিজেপির সাংগঠনিক রদবদলে  আচমকাই দলের ভিতর গোষ্ঠী কোঁদলে শুরু হয়েছে। আর সেই মূল্য সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন) সুব্রত চট্টোপাধ্যায়কে সরিয়ে অমিতাভ চক্রবর্তীকে আনার পর থেকেই  গোষ্ঠী রাজনীতির আগুনে ঘি পড়েছে। দিলীপ ঘনিষ্ঠ ওই আরএসএস নেতাকে সরানোর অর্থ আসলে তাঁর ডানা ছাঁটা, এমনটাই কথা ছড়িয়েছে চারিদিকে। এমনকি  দিলীপবাবুকে রাজ্য সভাপতি পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হতে পারে, এমন কথাও ঘুরে বেড়াচ্ছে চারিদিকে। যদিও দিলীপ থেকে সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি মুকুল রায় পর্যন্ত সকলেই এই সম্ভাবনার কথা মানতে চাননি। 

আরও পড়ুন, '৫ নভেম্বর বাংলায় আসছেন অমিত শাহ', ইকোপার্কে প্রাতঃভ্রমণে এসে জানালেন দিলীপ

 

'বর্গি বলতে কৈলাস বিজয়বর্গীকেই ইঙ্গিত'

এদিকে দিলীপ ঘোষের যে পোস্ট ঘিরে এত তোলপাড়, দলের ভিতর গোষ্ঠী কোঁদলে তা আরও বাড়িয়ে তুলেছে। এবার তার অন্তর্নিহিত অর্থ 'বর্গি' বলতে তিনি তাঁর বিরোধী কেন্দ্রীয় নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীকেই ইঙ্গিত করেছেন বলে রব উঠেছে। এবং এখানেই শেষ নয় 'বর্গি পেয়াদা' বলতে মুকুলকেও নিশানা করেছেন বলে অনেকের ধারণা। তবে দিলীপের পাল্টা সাফাই, দেব ছোট ছেলে। রাজনীতিতে অপরিণত। এত ভেবে ও কিছু লেখেনি। তবে এসব নিয়ে ভুল ব্যাখ্যা হচ্ছে দেখে ও পোস্টটা মুছে দিয়েছে।