করোনা ভয়ে এবার খোদ নবান্ন ছাড়তে হচ্ছে মুখ্যমন্ত্রীকে। নীচ থেকে একেবারে ১৪ তলা পর্যন্ত ছ়ড়িয়েছে সংক্রমণ। প্রায কোনও না কোনও আধিকারিক বা কর্মী করোনায় সংক্রমিত হচ্ছেন। যার জন্য় আর ঝুঁকি নিতে চাইছে না মুখ্যমন্ত্রীর নিরাপত্তা আধিকারিকরা। ঠিক হয়েছে, শীঘ্রই নবান্নর ঢিল ছোড়া দূরত্ব অ্যানেক্স বিল্ডিংয়ে সরানো হবে মুখ্যমন্ত্রীর দফতর। অগস্টে বা সেপ্টেম্বরের শুরুতেই উপান্ন থেকে কাজ করবেন মুখ্যমন্ত্রী।

হাতে ঘাসফুল-মনে পদ্মফুল, দলের 'গদ্দারদের' নিয়ে চিন্তায় তৃণমূল

জানা গিয়েছে, মুখ্যমন্ত্রীর অনুমতি ছাড়া কোনও আধিকারিকেরও প্রবেশের অনুমতি  থাকবে না উপান্নে। কেবল মুখ্যমন্ত্রীর তত্ত্বাবধানকারী নিরাপত্তা আধিকারিকরাই তার কাছে যাওয়ার অধিকার পাবেন। মূলত, উপান্নে মুখ্যমন্ত্রীর দফতার যাওয়ার পর নতুন করে আর কোনও ঝুঁকি নেবেন না তারা।

লকডাউনে শহরে পুলিশি তৎপরতা, তবু জুটল না রক্তাক্ত জখম কিশোরের জন্য অ্য়াম্বুল্য়ান্স

গত ২২ জুলাই তিনতলার এই নতুন ভবনটির উদ্বোধন করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। জানা গিয়েছে, মুখ্যসচিব ছাড়াও মুখ্যমন্ত্রীর দফতরের (সিএমও) কেবল কয়েকজন আধিকারিকের দফতরই থাকবে এখানে। তবে এখন নতুন করে সেই নিয়ম প্রযোজ্য  হবে কিনা তা মুখ্যমন্ত্রীই ঠিক করবেন।

বিজেপি ছেড়ে 'ঘরে ফিরছেন' তৃণমূলের একাধিক নেতা, কী বলছেন দিলীপ.

পরিসংখ্য়ান বলছে, বিগত ২ মাসে নবান্নে বার বার করোনা আক্রান্ত হয়েছেন অফিসার. হাউসকিপার, গাড়ির চালকরা। হিগত কিছুদিন দেখা গিয়েছে, বার বরা নবান্নের কাজ বন্ধ রেখে পুরো বিল্ডিং স্যানিটাইজ করতে হয়েছে। যার ফলে ব্যাহত হয়েছে প্রশাসনিক কাজ। সেই কারণে উপান্নতে মুখ্যমন্ত্রীর দফতর সরানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সূত্রের খবর, মুখ্যমন্ত্রীর ফক্সওয়াগনের পাশে আর অন্য কোনও গাড়ি রাখা যাবে না।