নাইসেডের আবেদনে সাড়া দিলেন পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। কো-ভ্যাকসিন টিকার প্রথম ডোজ নেবেন ফিরহাদ। নাইসেড সূত্রের খবর, কো-ভ্যাক্সিনের ট্রায়ালে অংশ নেওয়ার জন্য আবেদন জানানো হয় ফিরহাদ হাকিমকে। সেই আবেদনেই সাড়া দিয়েছেন কলকাতার বিদায়ী মেয়র। 

'প্রথম ডোজ নেব আমি', ফিরহাদ

পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম জানিয়েছেন,' নাইসেড আমার সঙ্গে যোগায়োগ করে। পরীক্ষামূলক প্রয়োগের জন্য প্রথম জোড আমাকে দিতে চায়। আমি রাজি হয়েছি। যে দিন বলবে সেদিনই গিয়ে প্রথম ডোজ নেব।' প্রসঙ্গত, কলকাতায় ইতিমধ্যেই এসে পৌছেছে করোনা ভ্যাকসিন। ভারত বায়োটেকের তৈরি কো-ভ্য়াকসিন এসে পৌঁছাছে নাইসেডে। পরীক্ষা মূলক প্রয়োগের জন্য হায়দরাবাদ থেকে আনা হয়েছে ১ হাজার টিকা।  ১ হাজার স্বেচ্ছা সেবককে পরীক্ষামূলকভাবে এই ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। নাইসেডের সূত্রে খবর, ভ্যাকসিনগুলি সংরক্ষণ করা হয়েছে মাইনাস ৪ ডিগ্রি তাপমাত্রায়। কো-ভ্যাকসিনের তৃতীয় পর্যায়ের ক্লিনিক্য়াল ট্রায়াল ডিসেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে। আর তার জন্য়েই ১ হাজার করোনা টিকা আনা হয়েছে।পুণের ন্যাশনাল ইন্সটিউট অফ ভাইরোলজি এবং ভারত বায়োটেকের যৌথ উদ্য়োগে তৈরি কো-ভ্যাকসিন। ১ হাজার স্বেচ্ছাসেবককে পরীক্ষামূলকভাবে এই ভ্যাকসিন দেওয়া হবে।

তৃতীয় পর্যায়ের ক্লিনিক্য়াল ট্রায়াল ডিসেম্বর থেকে শুরু 


নাইসেডের শান্তা দত্ত জানিয়েছেন, এটা থার্ড ফেসের ট্রায়াল। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। দেশে ২৬ হাজার মানুষের মধ্যে ট্রায়ালের দায়িত্ব পেয়েছে ২৪ টি সংস্থা। তার মধ্য়ে আমরা একটা। ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহ থেকে ট্রায়াল শুরু করে দেব। তিনি আরও জানান, 'নাইসেডে ক্লিনিক্য়াল ট্রায়ালের খবর প্রকাশ্যে আসতেই স্বেচ্ছাসেবক হওয়ার জন্য আমাদের কাছে অসংখ্য ফোন আসতে শুরু করেছে। প্রচুর মানুষ স্বেচ্ছা সেবক হতে চাইছে'। নাইসেড কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, স্বেচ্ছাসেবকদের ২৮ দিনের ব্য়াবধানে ২ টি ডোজ দেওয়া হবে। গোটা প্রক্রিয়া শেষ করতে ২১ ফেব্রুয়ারির শেষ সপ্তাহ হয়ে যাবে।