ফের রাজীব কুমারকে স্বস্তি দিল হাইকোর্ট। তাঁর গ্রেফতারির ওপর অন্তর্বর্তী স্থগিতাদেশের মেয়াদ বাড়িয়ে দিল হাইকোর্ট। গত ২২ মে সিবিআই নোটিশকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে হাইকোর্টে গিয়েছিলেন রাজীব কুমার। সেই সময় হাইকোর্ট জানিয়ে দেয়  রাজীবকে এখুনি গ্রেফতার করা যাবে না। অন্য দিকে রাজীবকেও কিছু শর্ত দেয় আদালত। যেমন তাঁর পাসপোর্ট  জমা থাকবে, তিনি রাজ্য ছাড়তে পারবেন না।

আরও পড়ুনঃ রাজীবই অস্ত্র, এবার সুদীপ্ত সেন ও দেবযানীর মুখোমুখি বসছে সিবিআই
চার ঘণ্টায় চারটি প্রশ্ন, জানুন ঠিক কী জিজ্ঞেস করা হল রাজীব কুমারকে

এই অবস্থাতেই গত ৭ জুন সিবিআই-এর মুখোমুখি হন কলকাতার প্রাক্তন নগরপাল। সিজিও কমপ্লেক্সে সিবিআই গোয়েন্দাদের জেরার মুখোমুখি হন রাজীব কুমার। সূত্রের খবর সেই সময় বেশ কিছু অপ্রীতিকর প্রশ্নের মুখে পড়েছিলেন রাজীব। রাজীবকে প্রশ্ন করা হয়েছিল তাঁরই সহকর্মী তথা অধস্তন দিলীপ হাজরা, অর্ণব ঘোষের থেকে পাওয়া নথির ভিত্তিতে। রাজীবকে সিবিআই কর্তারা জিজ্ঞেস করেছিলেন কেন ১২ ট্রাঙ্ক নথির ব্যাপারে আগে কিছু জানাননি রাজীব। সূত্রের খবর রাজীব সেই প্রশ্নের উত্তরে বলেন সেই নথির খোঁজ তার নিজের কাছেও ছিল না।টানা চার ঘণ্টা জেরা চললেও, কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশ ছিল আগামী ১০ জুলাই পর্যন্ত রাজীবকে গ্রেফতার করা যাবে না।কাজেই সে যাত্রা বেঁচে যান রাজীব।
এবার আসরে নেমে তিনি ফের সেই রক্ষাকবচকেই বাড়িয়ে নিলেন। মঙ্গলবার বিচারপতি আশা আরোরার জানিয়ে দিলেন এই স্থগিতাদেশ বহাল থাকবে ২২ জুলাই পর্যন্ত। বাইরে না যেতে পারার শর্তটিতে শিথিলতা চেয়েও আবেদন করেছেন রাজীব। এদিকে সিবিআই-এর তরফে নজিরিবিহীন তৎপরতা শুরু হয়েছে এই কাণ্ডটির নিষ্পতির জন্যে। এদিনই সিবিআই-এর তরফে সিজিআই কমপ্লেক্সে আগামী ৫ জুলাই জিজ্ঞাসাবাদের জন্যে ডাকা হয়েছে শুভাপ্রসন্নকে।