বিউটি পার্লার ও স্পা-র নাম করে শহর জুড়ে বসেছিল মধুচক্রের আসর। কলকাতার চার জায়গায় রবিবার রাতভর তল্লাশি চালিয়ে বিউটি পার্লার ও স্পা-এর আড়ালে মধুচক্রের সন্ধান পেয়েছে পুলিশের অ্যান্টি হিউম্যান ট্রাফিকিং ইউনিট। এই চক্রের সঙ্গে  জড়িত ওই পার্লারের মালিক এবং দালাল-সহ মোট ৩০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। উদ্ধার করা হয়েছে যৌনকর্মীদেরও। যাদবপুর থানার প্রিন্স আনোয়ার শাহ রোডের একটি বহুতলের তিন তলা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে, মধুচক্রের মালিক-সহ মোট আট অভিযুক্তকে। উদ্ধার করা হয়েছে সাতজন যৌনকর্মীকে।

আরও পড়ুন, শহরে আবার যৌন নির্যাতনের শিকার কিশোরী, গ্রেফতার অভিযুক্ত যুবক

ভবানীপুরের ভগবান মহাবীর সরণির 'সুইট অ্যান্ড শাওয়ার ফ্যামিলি সালোঁ অ্যান্ড স্পা' থেকে উদ্ধার করা হয়েছে যৌনকর্মীদের। এখানে পুলিশের জালে ধরা পড়েছেন মধুচক্রের ম্যানেজার, ২ জন দালাল এবং ৯ জন গ্রাহক। দক্ষিণ কলকাতার আর একটি মধুচক্র থেকে এর মালিক, ম্যানেজারের পাশাপাশি গ্রেফতার করা হয়েছে ২ জন গ্রাহককেও। গড়িয়াহাট থানার রাসবিহারী অ্যাভিনিউয়ের ওই ঠিকানা থেকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে ৬ জন যৌনকর্মীকে। এর পাশাপাশি, অভিযান চালানো হয়েছে মধ্য কলকাতার নিউ মার্কেট থানা এলাকাতেও।

আরও পড়ুন, যান্ত্রিক ত্রুটিতে ছাড়তে দেরি ঢাকাগামী বিমান, কলকাতা বিমানবন্দরে যাত্রী বিক্ষোভ

 ১-এ মির্জা গালিব স্ট্রিট ঠিকানায় ,গাইজ অ্যান্ড ডলস বিউটি পার্লার। গোয়েন্দাদের দাবি, দীর্ঘদিন ধরেই এই পার্লারের আড়ালেও রমরমিয়ে চলছিল মধুচক্র। অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করা হয় এর ম্যানেজার, ২ জন দালাল এবং ৩ গ্রাহককে। উদ্ধার করা হয়েছে ৬ জন তরুণীকে। গত সপ্তাহেই উড়ো ফোনের সূত্র ধরে আলিপুরে একটি মধুচক্রের হদিশ পায় পুলিশ। কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের আধিকারিকদের সঙ্গে নিয়ে মহিলা কমিশনের সদস্যরা অভিযানে গেলে আলিপুর রোডের একটি বহুতলের একতলায় ,প্রাভাদা থাই স্পা থেকে হাতেনাতে ধরা পড়েন এক গ্রাহক। তাদের জেরা করে চক্রের বাকিদের সন্ধান চলছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।