সকাল থেকেই বন্ধের প্রভাবে নাজেহাল সাধারণ মানুষ। নাগরিকপঞ্জী বা নাগরিকত্ব আইন-সহ একাধিক বিষয়ে চলছে এই ধর্মঘট। রেললাইনে কলাপাতা ফেলে থামিয়ে দেওয়া হয় রেল চলাচল। অনেক জায়গায় আবার রেল লাইনে দাঁড়িয়ে বিক্ষোভ দেখায় বন্ধ সমর্থকেরা। রীতিমত পুলিশ বাহিনীর সামনে থেকেই রেল অবরোধ করছে বন্ধ সমর্থকেরা। বাম-কংগ্রেসের ডাকা ধর্মঘটের প্রভাব ফেলেছে বাস ও ট্যাক্সি পরিষেবায়ও। সকাল সকাল রেল অবরোধে নাজেহাল নিত্য যাত্রীরা। 

আরও পড়ুন- বাম- কংগ্রেসের ডাকে ২৪ ঘণ্টার সাধারণ ধর্মঘট, জেলায়-জেলায় রেল ও বাস অবরোধ

সকালে ব্যারাকপুর, সোদপুর বেলঘরিয়া রেল স্টেশনে লাল পতাকা হাতে অবরোধ করে বাম সমর্থকেরা। ফলে ব্যহত হয় রেল চলাচল। আপ এবং ডাউনের ট্রেন বন্ধ থাকার জেরে ভোগান্তিতে পড়তে হয় অফিস যাত্রীদের। শিয়ালদহ মেইন লাইনের ইছাপুর, শ্যামনগর থেকে কাঁচড়াপাড়াতেও ব্যহত হয় রেল চলাচল। সুজন চক্রবর্তীর নেতৃত্বে বন্ধ সমর্থকেরা অবরোধ করে যাদবপুর স্টশনে। 

আরও পড়ুন- দেখা নেই বেসরকারি বাস- ট্যাক্সির, বনধের মোকাবিলায় শাসক দলের ভূমিকায় ধোঁয়াশা

দমদম রেল স্টেশনের টিকিট কাউন্টারও বন্ধ রাখে বাম সমর্থকেরা। পাশাপাশি মেট্রো স্টেশনে ঢুকে অবরোধের চেষ্টা চালায় তাঁরা। একই পরিস্থিতি হাওড়া দক্ষিণপূর্ব রেল-এর চেঙ্গাই, ভোগপুরের পরিস্থিতি এই রকমই। খড়গপুর-টাটানগর শাখায়ও বিপর্যস্ত হয় রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা। তমলূক স্টেশনে অবরোধ করলে কিছুক্ষণের মধ্যেই তা তুলে নেওয়া হয়। সূত্রের খবর অনুযায়ী, সকাল নটা অবধিও শিয়ালদহ থেকে ট্রেন চলাচল শুরু করা যায়নি।