শহর কলকাতায়, অভিযান চালিয়ে  সাফল্য পেল কলকাতা পুলিশের স্পেশাল টাস্ক ফোর্স৷ ইতিমধ্য়েই গ্রেফতার করা হয়েছে, জাল নোটের জন্য় কৃষ্ণ মণ্ডলকে এবং বেআইনিভাবে সোনা পাচার করার জন্য় সোহেল রানাকে ৷ তাদের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে প্রচুর জাল নোট,সোনার বাঁট এবং বিদেশী মুদ্রা৷ 

আরও পড়ুন, ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা শহরে, রবিবার থেকে জাঁকিয়ে শীত কলকাতায়

লালবাজার সূত্রে খবর,বৃহস্পতিবার শহরের দুই প্রান্তে অভিযান চালায় এসটিএফ৷ সোর্স মারফত খবর পেয়ে হানা দিয়েছিল এসটিএফ এর অ্যান্টি  টিমের অফিসারেরা৷ উদ্ধার হল বিপুল পরিমাণ জাল নোট এবং বিদেশী মুদ্রা৷ আর এই চক্রের দুই পান্ডাকে গ্রেফতার করা হয়৷ একজন জাল নোটের কারবারি আর একজন হল বাংলাদেশি সোনা পাচারকারী।

আরও পড়ুন, নিজের কন্যাকে শ্লীলতাহানি, চিকিৎসক বাবার দিকে অভিযোগের তির খোদ ডাক্তার স্ত্রীর

 প্রথম ঘটনাটি ঘটেছে,পার্ক সার্কাস ময়দান এলাকার কাছে ।  সূত্রের খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার সকাল ১১টা নাগাদ ঘটনাস্থলে পৌঁছে যান কলকাতা পুলিশের স্পেশাল টাস্ক ফোর্সের অফিসারেরা। ঠিক ১১টা ৪০ নাগাদ ঘটনাস্থলে আবির্ভূত হন সন্দেহভাজন অপরাধী, হাতে মাঝারি মাপের চামড়ার ব্যাগ। আর তারপরেই অ্যান্টি টিমের অফিসারেরা অপরাধীকে ঘিরে ফেলেন৷  সাদা পোশাকে দেখে অপরাধীরা প্রথমে বুঝতে পারেনি যে এরা পুলিশ অফিসার৷ তারপরই পালানোর চেষ্টা করে অপরাধীরা৷ কিন্তু তারপরই হাতেনাতে ধরে ফেলে পুলিশ। ঘটনাস্থলেই গ্রেফতার করা হয় তাদেরকে। 

আরও পড়ুন, বর্জ্য় পদার্থ থেকে তৈরি হবে এবার জৈবসার, আবর্জনা নিয়ন্ত্রনে অত্যাধুনিক মেশিন বসালো লালবাজার

দ্বিতীয় ঘটনাটি ঘটেছে   বড়বাজারের অমরতলা স্ট্রিটে। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায় স্পেশাল টাস্ক ফোর্সের  অফিসারেরা। যাদের মূলত কাজ ,বেআইনি চোরাই সোনার বাঁট চালান করা বড়বাজারের সোনাপট্টিতে। যারা ট্রেনে করে আসত সোজা কলকাতায়। এরপরই পুলিশি অভিযান চালিয়ে ধরে ফেলা হয় একজন বাংলাদেশি সোনা পাচারকারীকে৷ তাঁর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ৩২,৫০০ মার্কিন ডলার এবং ১,৭৩২ বাংলাদেশি টাকা৷ ঘটনাস্থলেই গ্রেফতার করা হয় তাঁকে।