সাত সকালে তীব্র বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল বেলেঘাটা চত্বর। খাস কলকাতায় বিস্ফোরণের আওয়াজ শুনে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। মঙ্গলবার সকালে আচমকা বিস্ফোরণ ঘটে বেলেঘাটার গান্ধী ময়দান এলাকার একটি ক্লাবঘরে। ওই ক্লাবঘরের দোতলায় বিস্ফোরণের জেরে ঘরের গোটা ছাদটাই উড়ে যায়। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, সকাল সাতটা নাগাদ আচমকা বিস্ফোরণ হয় ওই ক্লাবঘরে। বিস্ফোরণের তীব্রতা এতটাই বেশি ছিল যে, ক্লাবঘরের ছাদটাই উড়ে যায়। ক্লাবঘরে বিস্ফোরক জাতীয় কিছু ছিল বলে প্রাথমিক তদন্তে অনুমান করছে পুলিশ।

আরও পড়ুন-পুজোর মুখে ফের কোভিড পরীক্ষায় রাশ মুখ্যমন্ত্রীর, লাগাম পড়ল অ্যাম্বুল্যান্স পরিষেবায়

ঘটনাস্থল, ১৫০, বেলেঘাটা মেইন রোড। গান্ধী ময়দান ফ্রেন্ডস সার্কল নামে ওই ক্লাবঘরে বিস্ফোরণ হয়। ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে বিশাল পুলিশ বাহিনী। ওই ক্লাবঘরটিকে ঘিরে রেখেছে পুলিশ। সকালে বিকট আওয়াজ শুনে স্থানীয় বাসিন্দারা ওই ক্লাব ঘরে গিয়ে দেখেন, ক্লাবের দোলতলায় ছাদ উড়ে গিয়েছে। বিস্ফোরণের জেরে ভেঙে পড়েছে দেওয়ালের একাংশ। পুড়ে যাওয়ার ছাপ পড়েছে ক্লাবের দেওয়ালেও।

আরও পড়ুন-আরও সঙ্কটজনক অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্য়ায়, অবস্থার অবনতি হওয়ায় পাঠানো হল ভেন্টিলেশনে

ক্লাবঘরের বিস্ফোরণ ঘিরে নানান তত্ত্ব উঠে আসছে। ক্লাবের সঙ্গে যুক্ত একাংশের দাবি, সেখানে গ্যাস সিলিন্ডার থাকায় তা লিক করে বিস্ফোরণ ঘটেছে। আবার কেউ বলছেন গ্যাস সিলিন্ডার রাখা ছিল না সেখানে। কেউ বা কারা, বাইরে থেকে এসে ক্লাবঘর লক্ষ্য করে বোমা ছুঁড়েছে বলে অভিযোগ। যদিও ওই ক্লাব ঘরে বোমা রাখার অভিযোগ উঠেছে। তবে এই অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি ক্লাব সদস্যদের। 

আরও পড়ুন-এবার সশরীরে নয়, ভার্চুয়ালে পুজো উদ্বোধন করবেন মুখ্যমন্ত্রী, দেখে নিন আপনার পাড়ায় কোন দিন

যদিও, বিস্ফোরণের কারন নিয়ে এখনও স্পষ্ট কিছু জানায়নি পুলিশ। কলকাতা পুলিশের গুন্ডা দমন শাখার আধিকারিকদের দাবি, ওই ক্লাবে বিস্ফোরক জাতীয় কিছু মজুত করা ছিল বলে অনুমান। অন্যদিকে, বোমা তৈরির মশলা রাখা হয়েছিল বলে অভিযোগ করেছেন গ্রামবাসীরা। গোটা ঘটনার তদন্ত করছে পুলিশ।