সামরিক দক্ষতায় এখন আমেরিকা ও ইজরায়েলের সমান ভারত। পাকিস্তানের বালাকোটে এয়ারস্ট্রাইকের পর সেই যোগ্যতা অর্জন করেছে ভারতীয় সেনা।  কলকাতায় এনএসজি ভবনের উদ্বোধনে এসে এই কথাই বললেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

স্কুল শিক্ষক নিয়োগে উঠে যাচ্ছে ইন্টারভিউ প্রক্রিয়া, ঘোষণা করল রাজ্য সরকার

রবিবার কলকাতায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন,  অতীতে  প্রতিবেশী দেশে ঢুকে হামলা চালানোর ক্ষমতা  কেবল আমেরিকা, ইজরায়েলের ছিল। এখন সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের পর সেই যোগ্যতা অর্জন করেছে ভারতও। সামরিক  শক্তিতে বিশ্বের অন্যতম শক্তিধর দেশের সঙ্গে এবার থেকে ভারতের নাম উচ্চারিত হবে। 

এদিন রাজারহাটে এনএসজি-র স্পেশাল কম্পোজিট গ্রুপ কমপ্লেক্সের উদ্বোধন করেন অমিত শাহ। সকাল ১১ টায় কলকাতায় পা দেন তিনি। সেখান থেকেই সোজা চলে যান নিউ টাউনে ওই ভবনের উদ্বোধনে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়ে দেন, আগামী দিনে এই সরকারের সময়কালে এনএসজি-র তরফ থেকে পাঠানো সব আবেদন পূরণ করা হবে। এনএসজি-কে একটা সম্পূর্ণ কমান্ডো ফোর্সে রূপান্তরিত করা হবে। বিশ্বের অন্যান্য যে কোনও ফোর্সের থেকে দু কদম এগিয়ে থাকবে এনএসজি। তাদের  শক্তিশালী করতে যা যা লাগবে  তা মোদী সরকার জোগাবে।

উত্তাল ধর্মতলা, অমিত শাহর কনভয় আটকাতে বিক্ষোভ-প্রতিবাদ

এদিন এনএসজি-র অনুষ্ঠানের পর শহিদ মিনারের সভায় যোগ দেওয়ার কথা অমিত শাহের। সিএএ প্রতিবাদের মধ্য়েই শাহের ভাষণে ফের উজ্জীবিত হওয়ার কথা ভাবছে বিজেপি।  শহিদ মিনার ময়দানের জনসভায় সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন সিএএ নিয়ে ভাষণ দেওয়ার কথা রয়েছে তাঁর। সেখানেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে সিএএ আইন আনার জন্য় অভিনন্দন জানাবে রাজ্য় বিজেপি। 

এদিকে অমিত  শাহের আগমনের সঙ্গে সঙ্গে সকাল  থেকেই কলকাতা বিমানবন্দরে শুরু হয়েছে বিক্ষোভ প্রদর্শন।  স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে গো ব্যাক স্লোগান তুলে কালো পতাকা দেখিয়েছে বাম কর্মী সমর্থকরা। যাদবপুর ছাড়াও শহরের বহু জায়গায়  অমিত শাহ বিরোধী স্লোগান দিয়েছে বাম ব্রিগেড। যাদবপুর সুজন  চক্রবর্তীর  নেতৃত্বে পথে নেমেছেন প্রতিবাদকারীরা।

স্কুল শিক্ষক নিয়োগে উঠে যাচ্ছে ইন্টারভিউ প্রক্রিয়া, ঘোষণা করল রাজ্য সরকার

শহিদ মিনারে অমিত শাহ পৌঁছনোর আগেই এসপ্লানেড চত্বরে শুরু হয়েছে বিক্ষোভ। ব্যারিকেড ভেঙে ঢোকার চেষ্টা করছে বিক্ষোভকারীরা। যা নিয়ে প্রতিবাদকারীদের সঙ্গে একপ্রস্থ খণ্ডযুদ্ধ হয়েছে পুলিশের।