অবশেষে জামিন পেলেন সাংবাদিক সুমন চট্টোপাধ্যায়। গুরুতর শারীরিক  অসুস্থতার কারণে তাকে জামিন দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। আই-কোর চিটফান্ড মামলায় সাংবাদিক সুমন চট্টোপাধ্যায়কে গ্রেফতার করেছিল সিবিআই। দীর্ঘ ১৯ মাস পর জামিন পেলেন  তিনি।

 ২০১৮ সালের ২০ ডিসেম্বর চিটফান্ড মামলায় তাকে গ্রেফতার করে সিবিআই। জানা গিয়েছে, তাঁর করোনা সংক্রমণের আশঙ্কার কথা উল্লেখ করায় শীর্ষ আদালত সুমনবাবুকে জামিন দিয়েছেন। মূলত, তার  শারীরিক  অবস্থার কথা চিন্তা করেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিচারপতিরা। 

ইতিমধ্য়েই সুমনবাবুর জামিনের খবর সোশ্য়াল মিডিয়ায় জানিয়েছেন স্ত্রী কস্তুরী চট্টোপাধ্যায়। পাশাপাশি রায়ের কপিও পেশ করেছেন। জানা গিয়েছে, বুধবার সুপ্রিম কোর্টে বিচারপতি ফলি নরিম্যান, বিচারপতি নবীন সিনহা ও বিচারপতি ইন্দিরা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কোরামে ভিডিয়ো কনফারেন্সিংয়ে মাধ্যমে এই মামলার শুনানি হয়। 

শীর্ষ আদালতকে সুমনবাবুর আইনজীবীরা জানিয়েছেন, হৃদযন্ত্রে গুরুতর সমস্যা ও ফুসফুসে সংক্রমণ নিয়ে ভুবনেশ্বরের অ্যাপোলো হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন সুমন চট্টোপাধ্যায়। এরকম একটা পরিস্থিতিতে তাঁর করোনা হওয়ার আশঙ্কা প্রবল। সেকারণে অবিলম্বে তাকে জামিন  দেওয়া হোক। সব বিচার করে সুমন চট্টোপাধ্যায়কে জামিনের নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।    

অতীতে আনন্দবাজার পত্রিকার সঙ্গে যুক্ত থাকলেও পরে নিজেই একদিন পত্রিকা খুলেছিলেন সুমন চট্টোপাধ্যায়। পরবর্তীকালে সেই সংবাদপত্রেই আইকোর-এর যোগ। সেই থেকেই  ২০১৮ সালের ২০ ডিসেম্বর আই-কোর চিটফান্ড মামলায় তাকে গ্রেফতার করে সিবিআই। তখন  'এই সময়' সংবাদপত্রের সম্পাদক হিসাবে  কাজ করছিলেন তিনি।   সেই সময় সুমনবাবুকে ভুবনেশ্বর নিয়ে যায় সিবিআই।  গ্রেফতারের পর থেকেই ভূবনেশ্বরের জেলে থাকতে হয়েছিল  তাকে।