গত দিনই পরিবহ মুখোপাধ্য়ায় নিগ্রহ কাণ্ডে পাঁচ অভিযুক্ত জামিন পেয়ে গিয়েছে। শিয়ালদহ আদালত জানিয়েছে পরিবাহ কাণ্ডে এই অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে এ যাবৎ কোনও তথ্য প্রমাণ পাওয়া যায়নি। এই ঘটনায় যারপরনাই ক্ষুব্ধ রাজ্যের জুনিয়র ডাক্তাররা।

স্বাস্থ্য ভবনে জুনিয়র ডাক্তাররা এদিন  দুপুর তিনটেয় পৌঁছে গেলেন শিক্ষা ও স্বাস্থ্য অধিকর্তার সঙ্গে কথা বলতে। এই  মিটিংয়ে থাকছেন ৩১ জন জুনিয়র ডাক্তার। তাঁরা মূলত আলোচনা করবেন হাসপাতালের পরিকাঠামো ও নিরাপত্তা নিয়ে। এই বৈঠকে থাকবেন স্বাস্থ্য সচিব, স্বাস্থ্যঅধিকর্তা, স্বাস্থ্য-শিক্ষা অধিকর্তা এবং দপ্তরে অধিকর্তারা।

আরও পড়ুনঃ এনআরএস-এর অভিযুক্তদের জামিন, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ফের পথে নামতে পারেন চিকিৎসকরা

এই দিন এইখান থেকেই সংবাদমাধ্যমের সামনে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন জুনিয়র চিকিৎসকেরা। স্বাস্থ্য ভবনে এসে এদিন বেশ কিছু জুনিয়র ডাক্তাররা বলেন, কল্যাণী বা সাগর দত্ত মেডিক্যালে এ যাবৎ পরিকাঠামোগত কোনও উন্নতি হয়নি, আশ্বাসই সার হয়ে থেকেছে। এই সূত্র ধরেই এল অভিযুক্তদের জামিনের প্রসঙ্গ। উল্লেখ্য মুখ্যমন্ত্রী বৈঠকে বলছিলেন কোনও রকম শিথিলতা নয়, চূড়ান্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে অপরাধীদের বিরুদ্ধে। অথচ মামলা শুরু হতেই পাঁচ জন ছাড়া পেয়ে গেল। এই ঘটনাকে তাঁরা ন্যাক্কারজনক বলছেন। একই সঙ্গে বলছেন, তাদের পিছন থেকে ছুরি মারা হয়েছে। অর্থাৎ পরিস্কার বিশ্বাসভঙ্গের ইঙ্গিত দিচ্ছেন ছাত্ররা।


রাজ্যের পরিস্থিতি এখন একটু হালকা হয়েছে। সদ্য চিকিৎসকরা কর্মবিরতির ভেঙে কাজে ফিরেছেন। দিন কয়েকের কর্মবিরতিতে গোটা রাজ্য সাক্ষী থেকেছে চিকিৎসা পরিষেবা স্তব্ধ হয়ে যাওয়ার ঘটনার। চিকিৎসার অভাবে মৃত্যুও হয়েছে রোগীর। সেই পরিস্থিতি মোকাবিলাতে নেমে চিকিৎসকেরা ১২ দফা দাবিই মেনে নিয়েছিল। কিন্তু কার্যক্ষেত্রে সেই ফল না পেয়েই ফের তৎপর হচ্ছেন চিকিৎসকেরা। প্রশাসনিক ব্য়র্থতা নিয়ে তারা ফের পদক্ষেপ নিতে পারেন। মুখ্যমন্ত্রী নিশ্চয়ই জানেন চিকিৎসকেরা চটলে কী ফল হতে পারে।