করোনা আতঙ্কে রাজ্য়ের স্কুল, কলেজ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং  কলকাতা শহরের যাবতীয় দ্রষ্টব্য স্থান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। একমাত্র সেই তালিকায় নাম পড়েনি কলকাতা চিড়িয়াখানার। করোনার সংক্রমণ এড়াতে চিড়িয়াখানার সব কর্মীদের মাস্ক পরে থাকার এবং হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন, রাজ্যে ফের ঢুকছে পশ্চিমী ঝঞ্ঝা, তৈরি হচ্ছে বিপরীত ঘূর্ণাবর্ত


করোনা মোকাবিলায় রবিবার থেকেই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে কলকাতার ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল, জাদুঘর, সায়েন্স সিটি-সহ সব বড় দ্রষ্টব্য স্থান। তবে এই তালিকা থেকে এখনও বাদ রয়েছে চিড়িয়াখানা।  রবিবার পর্যন্ত অন্তত দর্শকদের জন্য খোলা রাখারই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ। তবে খোলা রাখলেও সংক্রমণ যাতে না ছড়ায়, সে ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কলকাতা চিড়িয়াখানা।

আরও পড়ুন, বাধা দিচ্ছে করোনা আতঙ্ক, পুরভোট পিছোনোর দাবি তুলবে তৃণমূল


সংক্রমণ রুখতে চিড়িয়াখানার সব কর্মীদের মাস্ক পরে থাকার এবং হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে করোনা আতঙ্কে কলকাতা চিড়িয়াখানায় পর্যটকদের সংখ্যা অনেকাংশেই কমে গিয়েছে। তবুও যাঁরা আসছেন, তাঁদেরকেও মাস্ক পরে চিড়িয়াখানা ঢোকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। চিড়িয়াখানা সূত্রে জানা গিয়েছে, দর্শক সংখ্যা কম থাকলে পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে সোমবার থেকে চিড়িয়াখানা  বন্ধ করা হতে পারে। উল্লেখ্য়,   লিখিত  নির্দেশ না থাকলেও মৌখিক ভাবে আপাতত বন্ধ রাখা হয়েছে বিদেশিদের আনাগোনা। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য়, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য় মন্ত্রক থেকে ইতিমধ্য়েই রাজ্য় এবং সংস্থাকে আগাম করোনা ভাইরাস নিয়ে আগাম সতর্কতা নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। স্টেডিয়াম, থিয়েটার, সিনেমা হল সহ সব জায়গাতেই কোনওরকম জমায়েতের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

আরও পড়ুন, পুরভোট পিছোনোর কথা বলবে না বিজেপি, নয়া চালে তৃণমূলকে মাত মুকুলের